ইয়াওমুল আহাদ (রবিবার), ২৯ নভেম্বর ২০২০

কোলেস্টেরল কমাতে ঢ্যাঁড়শ

কোলেস্টেরল কমাতে ঢ্যাঁড়শ

স্বাস্থ্য ডেস্ক: দেশীয় সবজিগুলোর মধ্যে ঢ্যাঁড়শ অতি পরিচিত। প্রায় সবারই পছন্দের তালিকায় রয়েছে এটি। ভাজি-ভর্তা সবভাবেই খাওয়া যায় ঢ্যাঁড়শ। এর রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। ঢ্যাঁড়শে ভিটামিন এ, বি ও সি ছাড়াও রয়েছে উচ্চমাত্রার ফাইবার ও অন্যান্য খনিজ উপাদান।

প্রতি ১০০ গ্রাম ঢ্যাঁড়শ ভক্ষণযোগ্য অংশে আমিষ (১.৮ গ্রাম) ভিটামিন ‘সি’ (১৮ মিলিগ্রাম) খনিজ পদার্থ বিশেষ করে ক্যালসিয়াম (৯০ মিলিগ্রাম), লোহা (১ মিলিগ্রাম) ও আয়োডিন রয়েছে। এছাড়াও এতে থাকা ভিটামিন ‘সি’ শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে, যা এ ঋতু বদলের সময় আপনাকে সাধারণ ফ্লু থেকে রক্ষা করবে। চলুন জেনে নেওয়া যাক এর আরও কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা-

এতে ক্যালরির পরিমাণ খুবই কম। এতে থাকা ফাইবার উপাদান দীর্ঘক্ষণ আপনার ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণ করে। এর ফলে ওজন থাকে নিয়ন্ত্রণে। ঢ্যাঁড়শের মধ্যে রয়েছে সলিউবল ফাইবার (আঁশ) পেকটিন; যা রক্তের বাজে কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে এবং অ্যাথেরোসক্লোরোসিস প্রতিরোধ করে।

এতে রয়েছে ক্যারোটিন, ফলিক এসিড, থায়ামিন, রিবোফ্লাভিন, নিয়াসিন, অক্সালিক এসিড এবং অত্যাবশ্যকীয় অ্যামাইনো এসিড। ঢ্যাঁড়শে উচ্চমাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা ক্যান্সার রোগ সৃষ্টিকারী কোষগুলোকে ধ্বংস করতে সাহায্য করে। হাঁপানিতে খুব ভালো কাজ করে ঢ্যাঁড়শ। রোগটির হারবাল চিকিৎসায় ওষুধ হিসেবে ঢ্যাঁড়শ ব্যবহার করা হয়। প্রতি ১০০ গ্রাম ঢ্যাঁড়শ শূন্য দশমিক শূন্য সাত মিলিগ্রাম থায়ামিন, শূন্য দশমিক শূন্য ছয় মিলিগ্রাম নিয়াসিন ও শূন্য দশমিক শূন্য এক মিলিগ্রাম রিবোফ্লাভিন রয়েছে। যা ডায়াবেটিস রোগীর স্নায়ুতন্ত্রে পুষ্টি সরবরাহ করে সতেজ রাখে।

ঢ্যাঁড়শে রয়েছে প্রচুর আঁশ যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। সহজে হজম হয় বলে বিপাকক্রিয়ায় সহায়তা করে। নিয়মিত ঢ্যাঁড়শ খেলে লোহিত রক্তকণিকার উৎপাদন বেড়ে যায়। ফলে সহজেই রক্তশূন্যতা দূর হয়। ঢ্যাঁড়শের মধ্যে রয়েছে অনেক ঔষধি গুণ। এর মধ্যে রয়েছে আঁশ, ভিটামিন ‘এ’, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এটি রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

Facebook Comments