ইয়াওমুল আহাদ (রবিবার), ২৯ নভেম্বর ২০২০

শসার বাম্পার ফলন

শসার বাম্পার ফলন

নিউজ ডেস্ক: মাত্র ৮ শতকের এক টুকরো জমিতে উন্নতজাতের শসার বাম্পার ফলনে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার হাফিজপুর গ্রামের তৌহিদ মিয়া। কৃষক তৌহিদ মিয়া বলেন, মাত্র কয়েক হাজার টাকা খরচ করে ৫০ হাজার টাকা আয় করেছি। এখনও আরও কিছু শসা বিক্রি করতে পারব।

তৌহিদ মিয়া বললেন, জমি বেশি প্রয়োজন হয় না, অল্প জমিতেও অধিক ফসল চাষ করা যায়। শসা চাষে লাভবান হয়ে তার প্রমাণ পেয়েছি। আমার শসার ফলন দেখে আশপাশের অনেকেই উৎসাহিত হয়েছেন। শসা চাষের জন্য তারাও জমি প্রস্তুত করছেন।

তারই প্রতিবেশী কৃষক ছায়েব আলী বলেন, চেষ্টা করলে ফল পাওয়া যায় তার প্রমাণ তৌহিদ মিয়া। এক টুকরো জমিতেই তিনি সে প্রমাণ দেখিয়েছেন। কৃষক রস্তম আলী বলেন, তৌহিদ মিয়াকে খাওয়া-ঘুম ছাড়া বাকি সময়টায় জমিতেই থাকতে দেখা যায়। তার পরিশ্রম কাজে লেগেছে। তার জমিতে শসার ভালো ফলন দেখে উৎসাহিত হয়েছেন অন্য চাষিরাও।

উপজেলার দ্বিমুড়া কৃষি ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শামীমুল হক শামীম বললেন, মাত্র ২ থেকে ৩ হাজার টাকা খরচ করে তৌহিদ মিয়া এরই মধ্যে ৫০ হাজার টাকার শসা বিক্রি করেছেন। পরিশ্রমই তাকে সফল করেছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আবদুল আউয়াল বলেন,

বাজারে বর্তমানে শসার কেজি ৭০ থেকে ৮০ টাকা। এ সময়ে শসার বাম্পার ফলন তৌহিদের দিনই বদলে দিয়েছে।

হবিগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. তমিজ উদ্দিন খান বলেন, শসা চাষ লাভজনক ফসল হিসেবেই বিবেচিত। কৃষি বিভাগ থেকে কৃষকদের নানাভাবে সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। শসা চাষের সময় কৃষক যাতে জমিতে কীটনাশক ব্যবহার না করেন, সেজন্য তাদের পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। কৃষক তৌহিদের টুকরো জমিতে শসার বাম্পার ফলন হয়েছে শুনে ভালো লাগছে। আমরা কৃষকদের পাশে আছি।

Facebook Comments