ইয়াওমুল জুমুআ (শুক্রবার), ৩০ অক্টোবর ২০২০

ফুসফুস ভালো রাখে সফেদা

ফুসফুস ভালো রাখে সফেদা

স্বাস্থ্য ডেস্ক: আমাদের পরিচিত ও দেশি ফল সফেদা। পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ অনেক উপকারী এই ফলটি হরহামেশাই হাতের নাগালে পাওয়া যায়। সফেদা একটি পুষ্টিমান সমৃদ্ধ অত্যন্ত মিষ্টি, সুস্বাদু ও সুন্দর গন্ধযুক্ত ফল। এছাড়াও এতে রয়েছে, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমূহের ভিটামিন এ, সি এবং ই, তামা, লোহা ইত্যাদি।

সফেদার প্রতি ১০০ গ্রাম খাদ্যযোগ্য অংশে রয়েছে খাদ্যশক্তি ৮৩ কিলোক্যালরি, শর্করা ১৯.৯৬ গ্রাম, আমিষ ০.৪৪ গ্রাম, ভিটামিন বি২ ০.০২ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি৩ ০.২ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি৫ ০.২৫২ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি৬ ০.০৩৭ মিলিগ্রাম, ফলেট ১৪ আইইউ, ভিটামিন সি ১৪.৭ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ২১ মিলিগ্রাম, আয়রন ০.৮ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম ১২ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ১২ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ১৯৩ মিলিগ্রাম, সোডিয়াম ১২ মিলিগ্রাম, জিংক ০.১ মিলিগ্রাম। পুষ্টিগুণের পাশাপাশি এই ফলটির রয়েছে অনেক ঔষধিগুণ।

যাদের ঘন ঘন ঠান্ডা লাগে তারা নিয়মিত সফেদা খান। ঠান্ডা লাগার সমস্যা কমে যাবে। ত্বকে বয়সের ছাপ দূর করতে সফেদা মহাকার্যকরী। যারা ওজন কমানো নিয়ে চিন্তিত তারা নিয়মিত সফেদা খেতে পারেন। সফেদা শ্বাসকষ্ট দূর করতে সাহায্য করে এবং ফুসফুস ভালো রাখে।

নিয়মিত সফেদা খেলে মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায় ও দাঁত ভালো থাকে। সফেদা একটি ফাইবার সমৃদ্ধ ফল, তাই একে প্রাকৃতিক গোলাপ হিসেবে ব্যবহার করা যায়। আধাপাকা সফেদা জলে ফুটিয়ে কষ বের করে খেলে ডায়রিয়া ভালো হয়। এতে প্রদাহ বিরোধী উপাদান রয়েছে যা ক্ষয়কারক গ্যাস্ট্রিক, আন্ত্রিক প্রদাহ, পেট জ্বালাপোড়া করা ইত্যাদি রোগের সমাধান করে। সফেদা খেলে মানসিক চাপ ও উদ্বেগ দূর হয়।

এছাড়াও সফেদায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ এবং সি রয়েছে। শরীরের কোষের ক্ষতিসাধন প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। এতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ আছে, এটি চোখ, ত্বক ও হাড়ের জন্য খুব উপকারী। নিয়মিত সফেদা খেলে শরীরের অতিরিক্ত চর্বি কমে। তাই বেশি খেলেও শরীরে মেদ বাড়ার আশঙ্কা থাকে না। সফেদার পুষ্টি এবং কার্বোহাইড্রেট থেকে কর্মজীবী মায়ের জন্য অনেক উপকারী। এটা গর্ভাবস্থায় বমি বমিভাব এবং মাথা ঘোরা দূর করতে সাহায্য করে।

সফেদায় থাকা খাদ্যআঁশ, পলিফেনলিক যৌগ ও ভিটামিন আমাদের শরীরকে রোগমুক্ত রাখতে সহায়তা করে। নিয়মিত সফেদা খেলে শারীরবৃত্তীয় কাজের গতি ত্বরান্বিত হয়। ফলে ক্যালসিয়াম, আয়রন ও ফসফরাস হাড়ের গঠনকেও মজবুত করে। হঠাৎ করে সর্দি, কাশি হলে ওষুধের বিকল্প হিসেবে সফেদা খেতে পারবেন।

সফেদায় আছে প্রচুর পরিমাণ গ্লুকোজ। এই গ্লুকোজ দেহে বাড়তি শক্তি জোগায়। কাজেও আসে গতি। সফেদা ফলের স্নায়ু শান্ত করার অসাধারণ এক ক্ষমতা আছে তাই খেতে পারেন। সফেদা একদিকে ত্বকের আর্দ্রতা রক্ষা করে কোষের ক্ষয় পূরণ করে, অন্যদিকে নতুন কোষ তৈরিতে অংশ নেয়। তারুণ্য ধরে রাখতে সহায়তা করে। সফেদা বীজের চুর্ণ খেলে কিডনির রোগ ভালো হয় এবং এটা মূত্রাশয়ের পাথর অপসারণ করতে সাহায্য করে।

Facebook Comments