ইয়াওমুস ছুলাছা (মঙ্গলবার), ২০ অক্টোবর ২০২০

নতুন ট্যাঙ্কের মহড়া পাকিস্তান সেনাবাহিনীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গত এপ্রিলে চীনা রাষ্ট্রীয় মিডিয়ায় দুটি ‘কাস্টমাইজড’ ভিটি-৪ মেইন ব্যাটল ট্যাঙ্ক ‘অজ্ঞাত বিদেশী ক্রেতার’ কাছে বিক্রির কথা প্রকাশ করেছিল।

প্রতিরক্ষা পর্যবেক্ষকরা তখন ধারণা করেছিলেন যে ওই ক্রেতা হলো পাকিস্তান। পাকিস্তানি ডিফেন্স বিশ্লেষণ ওয়েবসাইট কোয়া জানিয়েছে যে পাকিস্তান সেনাবাহিনী ৮৫৯ মিলিয়ন ডলারে অন্তত ১৭৬টি ভিটি-৪ ট্যাঙ্ক কেনার আদেশ দিয়েছে। ভিটি-৪ পরিচিত এমবিটি-৩০০০ নামে।

মঙ্গলবার পাকিস্তান সেনাবাহিনী এক মহড়ায় ভিটি-৪ প্রদর্শন করে। পাকিস্তান সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া ঝিলামের কাছে মহড়ায় ভিটি-৪ ট্যাঙ্ক প্রত্যক্ষ করেন।

ভিটি-৪ ইতোমধ্যেই থাইল্যান্ড ও নাইজেরিয়ার কাছে বিক্রি করা হয়েছে। গ্লোবাল টাইমস জানায়, এই ট্যাঙ্কের ফ্রন্ট ডিজাইন ফিচার হলো একটি নতুন এক্সপ্লোসিভ রিঅ্যাকটিভ আর্মার। এই ট্যাঙ্ক শত্রুর গোলাবর্ষণের মুখেও টিকে থাকতে সক্ষম। এটি রুশ সেনাবাহিনী উৎসের টি-৯০ ট্যাঙ্কের সমমানের। ভারতীয় সেনাবাহিনীর টি-৯০ ট্যাঙ্কের মতো ভিটি-৪-এর আছে ১২৫ এমএম কামান। এটিও প্রচলিত ট্যাঙ্কের মতো গুলিবর্ষণের পাশাপাশি ক্ষেপণাস্ত্রও নিক্ষেপ করতে পারে।

মঙ্গলবার ভিটি-৪ ট্যাঙ্কের মহড়ায় দেখা যায়, এটির টারেট রিমোট উইপন সিস্টেমে সজ্জিত। এর মানে হলো, এটি দূর নিয়ন্ত্রিত এবং পদাতিক বাহিনী ও অন্যান্য হালকা টার্গেটের বিরুদ্ধে সফল।

মার্কিন কংগ্রেস গবেষণা সার্ভিসের ২০১৭ সালের জানুয়ারির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এমবিটি-৩০০০ তৈরী করা হয়েছে রফতানির জন্য এবং এটির বেশ উন্নতি সাধন করা হয়েছে।

পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আইএসপিআর জানিয়েছে, ভিটি-৪ বিশ্বের যেকোনো আধুনিক ট্যাঙ্কের সাথে পাল্লা দিতে সক্ষম। এতে আধুনিক আর্মার প্রটেকশন, ম্যানুভারবিলিটি, ফায়ার পাওয়ার ক্যাপাবিলিটি, অত্যাধুনিক প্রযুক্তি রয়েছে।

আইএসপিআর ভিটি-৪কে পাকিস্তানের নিজস্বভাবে তৈরী আল-খালিদ-১-এর সাথে পাকিস্তান আর্মড কোরের আরেকটি সংযোজন হিসেবে অভিহিত করে।

সূত্র: দি উইক

Facebook Comments