ইয়াওমুস ছুলাছা (মঙ্গলবার), ২০ অক্টোবর ২০২০

বিনা অনুমতিতে ছবি তুলে মানহানিকর সংবাদ প্রচার করায় একটি দৈনিক পত্রিকার সম্পাদককে আইনি নোটিশ

একটি দৈনিক পত্রিকার সম্পাদককে আইনি নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিনা অনুমতিতে ছবি তুলে মানহানিকর ও উদ্দেশ্যমূলক সংবাদ প্রচার করার দায়ে ‘দৈনিক সময়ের আলো’ নামক একটি পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশকে আইনী নোটিশ পাঠানো হয়েছে। দৈনিক আল ইহসান পত্রিকার সাংবাদিক মুহম্মদ রাসেলের পক্ষ থেকে নোটিশটি প্রেরণ করেছেন এডভোকেট মেজবাহ উদ্দীন চৌধুরী।

নোটিশে বলা হয়, সম্প্রতি দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকায় একটি প্রতিবেদনে ভুক্তভোগী নোটিশদাতার ছবি সংযোজন করে একটি উদ্দেশ্যমূলক সংবাদ প্রচার করা হয়।

নোটিশদাতা নোটিশে তার অভিযোগ তুলে ধরে বলেন, তিনি দৈনিক আল ইহসান-এর রিপোর্টার হিসেবে কর্মরত। তিনি তার কর্মস্থলের কার পার্কিং থেকে অফিসের দিকে হেঁটে যাওয়ার সময় তার অজান্তে ছবি তুলে পত্রিকায় প্রকাশ করা হয়েছে। ছবির ক্যাপশনে ও প্রতিবেদনে আমার মক্কেলকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। বিনা অনুমতিতে ছবি তুলে ও বিভ্রান্তিকর প্রতিবেদনের সাথে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ছবি ব্যবহার করার মাধ্যমে ব্যক্তিস্বাধীনতা ও নাগরিক অধিকার ক্ষুণ্ন হয়েছে।

বিনা অনুমতিতে ছবি তোলার বিষয়ে নোটিশে বলা হয়, বাংলাদেশে প্রচলিত “ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন, ২০১৮”-এর ২৬ (১) ধারায় বলা হয়েছে, “যদি কোনো ব্যক্তি আইনগত কর্তৃত্ব ব্যতিরেকে অপর কোনো ব্যক্তির পরিচিতি তথ্য সংগ্রহ, বিক্রয়, দখল, সরবরাহ বা ব্যবহার করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তির অনুরূপ কার্য হইবে একটি অপরাধ।” একই আইনের ২৫ ধারায় বলা হয়েছে: “যদি কোনো ব্যক্তি ওয়েবসাইট বা অন্য কোনো ডিজিটাল মাধ্যমে, ইচ্ছাকৃতভাবে বা জ্ঞাতসারে, এমন কোনো তথ্য-উপাত্ত প্রেরণ করেন, যাহা আক্রমণাত্মক বা ভীতি প্রদর্শক অথবা মিথ্যা বলিয়া জ্ঞাত থাকা সত্ত্বেও, কোনো ব্যক্তিকে বিরক্ত, অপমান, অপদস্থ বা হেয় প্রতিপন্ন করিবার অভিপ্রায়ে কোনো তথ্য-উপাত্ত প্রেরণ, প্রকাশ বা প্রচার করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তির অনুরূপ কার্য হইবে একটি অপরাধ।” একই আইনের ২৯ ধারা অনুযায়ী, অনলাইনে মানহানিকর তথ্য প্রকাশ বা প্রচারও একটি অপরাধ।

নোটিশদাতা জানান, কোনো আইনগত কর্তৃত্ব ব্যতিরেকে এভাবে ছবি তুলে অনলাইনে প্রকাশ করে এবং উক্ত প্রতিবেদন দ্বারা নোটিশদাতা বিরক্ত, অপমান, অপদস্থ ও হেয় প্রতিপন্ন হয়েছেন। কর্মস্থলে প্রবেশের একটি সাধারণ ছবিকে অনলাইনে মানহানিকরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

এমতাবস্থায় নোটিশদাতা দাবি করেন- উক্ত নোটিশ পাওয়ার ২ দিনের মধ্যে উল্লেখিত আপত্তিকর ছবি ও প্রতিবেদন প্রত্যাহার করার এবং একই পত্রিকার প্রথম পৃষ্ঠায় ক্ষমা প্রার্থনা করা এবং ভবিষ্যতে এই ধরনের অপকর্ম থেকে বিরত থাকার অঙ্গীকার করতে হবে। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments