ইয়াওমুল ইসনাইন (সোমবার), ২৫ মে ২০২০

ক্ষেতেই পচলো ১০ লক্ষাধিক টাকার ফুটি-তরমুজ

ক্ষেতেই পচলো ১০ লক্ষাধিক টাকার ফুটি-তরমুজ

ঝালকাঠি সংবাদদাতা: কাজ বন্ধ, লকডাউনের কারণে পরিবহন ও শ্রমিক সংকট, এসবের কারণে নিঃস্ব হলেন ঝালকাঠি জেলার তরমুজ, ফুটি ও অন্যান্য সবজি চাষিরা। রাজাপুর উপজেলার বাগড়ি গ্রামের ধানসিঁড়ি নদী তীর এলাকার প্রায় ১০ বিঘা জমির ফুটি ও তরমুজসহ অন্যান্য ফসল ক্ষেতেই পচে নষ্ট হয়ে গেছে।

ফসল পচে সর্বস্বান্ত হয়েছেন এলাকার সংশ্লিষ্ট ১৫ জন কৃষক। সর্বস্ব হারিয়ে চরম হতাশায় ভুগছেন তারা। ঋণের টাকা কীভাবে শোধ করবেন কপালে সেই চিন্তার ভাঁজ।

বাগড়ি গ্রামের একাধিক কৃষক জানান, প্রায় ১০ বিঘা জমিতে ফুটি, তরমুজ, মিষ্টি কুমড়া, জালি কুমড়ার সঙ্গে লাফা, ভেন্ডি, করলা, শশা, পুঁইশাক, মরিচসহ নানা সবজি ও ফসল চাষ করেছিলেন তারা। ফলনও বেশ ভালোই হয়েছিল। প্রতি বিঘা জমিতে বীজ, সার, সেচ, কীটনাশক ও শ্রমিক খরচসহ ব্যয় হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার টাকারও বেশি। ফসল ভালো হওয়ায় প্রতি বিঘায় মুনাফা ধরা হয়েছিলো লক্ষাধিক টাকা। ফসলের শুরুটা খুব ভালো হওয়ায় তারা ভেবেছিলেন ফসল বিক্রি করে কষ্টের দিনগুলোতে দু’মুঠো আহারের ব্যবস্থা করতে পারবেন অন্তত। কিন্তু বাজারে পণ্য পরিবহন করতে ব্যর্থ হওয়ায় নিঃশেষ হয়ে গেলো তাদের সব স্বপ্ন।
ফসল নষ্ট হওয়ায় পুঁজি হারিয়ে পথে বসা ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকেরা আরও জানান, এ ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে সহজ শর্তে ঋণ ও সরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন। ঋণের ব্যবস্থা না হলে লকডাউনে কর্ম না থাকায় তাদের না খেয়ে মরতে হবে। তবে এসব ক্ষতি হলেও কৃষি বিভাগ বা কেহই তাদের খোঁজ খবর নেয়নি।

Facebook Comments