ইয়াওমুল ইসনাইন (সোমবার), ২৫ মে ২০২০

কাসেম সোলাইমানি হত্যাকান্ড নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: এ বছরের জানুয়ারিতে বিশ্বের অন্যতম আলোচিত ঘটনা ছিল ইরানে রেভোলিউশনারি গার্ড বাহিনীর কুদস ফোর্সের কমান্ডার কাসেম সোলাইমানি হত্যাকান্ড। ইরাকের বাগদাদ বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা চালিয়ে তাকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী। ডোনাল্ড ট্রাম্পের সরাসরি নির্দেশে তাকে হত্যা করা হয়।

এদিকে এতদিন এ হত্যাকান্ড নিয়ে জানা গেল নতুন তথ্য। ড্রোন হামলা চালিয়ে ইরানের কাসিম সোলাইমানিকে হত্যা করতে জার্মানির একটি বিমান ঘাঁটি ব্যবহার করেছিল যুক্তরাষ্ট্র।ড্রোন হামলা চালানোর জন্য জার্মানির রামস্টাইন বিমান ঘাঁটি ব্যবহার করা হয়।

জার্মানির লেফ্ট পার্টি থেকে সোলাইমানি হত্যাকান্ডে চ্যান্সেলর ম্যার্কেল এবং জার্মান মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীদের সংশ্লিষ্টতা নিয়ে তদন্তের আবেদন জানানো হয়েছিল। জার্মান প্রসিকিউটর গত মার্চেই তাদের ওই আবেদন নাকচ করে দিয়েছিলো। তখন বিষয়টি গোপন রাখা হলেও এ সপ্তাহে এ সংক্রান্ত নথিপত্র প্রকাশ পায়। প্রসিকিউটরের তদন্ত না করার সিদ্ধান্ত ২০১৯ সালে মুনস্টার আদালতের দেয়া এক রায়ের বিরুদ্ধে প্রথম চ্যালেঞ্জ।

২০১৯ সালের মার্চে ম্যুনস্টারের একটি আদালতের রায়ে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র আন্তর্জাতিক আইন অনুসরণ করে রামস্টেইন বিমান ঘাঁটি ব্যবহার করছে কিনা বা তারা জার্মানির মাটিতে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করছে কিনা তা নিরূপণে জার্মান সরকারকে ‘যথাযথ ব্যবস্থা’ গ্রহণ করতে হবে। ওই রায়ের বিরুদ্ধে সরকার আপিল করেছে।

যুক্তরাষ্ট্র সাধারণত নিজেদের ভূখন্ড থেকেই তাদের সামরিক ড্রোনগুলো পরিচালনা করে। কিন্তু স্যাটেলাইট সিগনাল বলছে, জানুয়ারিতে বাগদাদে চালানো ওই হামলাসহ মধ্যপ্রাচ্যে আরও কয়েকটি ড্রোন হামলায় তারা রামস্টাইন বিমান ঘাঁটি ব্যবহার করেছে।

সাবেক ড্রোন ক্যামেরা অপারেটর ব্র্যানডন ব্রায়ান্ট এবং আরও কয়েকজন আগেই এ বিষয়ে সতর্ক করে বলেছিলো, রামস্টাইন বিমান ঘাঁটিটি যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন সিস্টেমে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এবং নিশ্চিতভাবেই জার্মানির স্পষ্ট অনুমতি ছাড়া তারা ড্রোন হামলায় ওই ঘাঁটি ব্যবহার করতে পারতো না।

ইরানের সবচেয়ে প্রভাবশালী সামরিক নেতা এবং দেশটির অভিজাত কুদস ফোর্সের প্রধান সোলাইমানি হত্যাকান্ডের পর প্রতিশোধ নিতে ইরান প্রতিবেশী ইরাকে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের সেনাঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছিল। তারপর যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে যুদ্ধ পরিস্থিতির তৈরি হয়েছিল, মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে দেখা দিয়েছিল চরম উত্তেজনা।

ওই সময় জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকেও যুক্তরাষ্ট্রের এ হত্যার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছিল। বলা হয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্র ‘তাদের সিদ্ধান্ত ন্যায়সঙ্গত কিনা’ এমনকি সেটা জানতেও জার্মানিকে তারা কোনো তথ্য দেয়নি।

Facebook Comments