ইয়াওমুল খামিছ (বৃহস্পতিবার), ০৬ আগস্ট ২০২০

 উম্মুল মু’মিনীন উনাদের শান মুবারকে অবমাননাকর লেখা প্রকাশের দায়ে ৩ জনের বিরুদ্ধে সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলা

সাইবার অপরাধ দমনে হচ্ছে ‘সাইবার পুলিশ স্টেশন’

নিজস্ব প্রতিবেদক: মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছানিয়াহ আশার আলাইহাস সালাম ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্যের মাধ্যমে মুসলমানগণের দ্বীনি অনুভূতিতে আঘাতের দায়ে চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত পূর্বদেশ পত্রিকার প্রকাশক শফিকুর রহমান, সম্পাদক মুজিবুর রহমান ও লেখক লাভলী তালুকদারদের বিরুদ্ধে সাইবার ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ, ঢাকায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রোববার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আস্সামছ জগলুল হোসেন এ মামলা গ্রহণ করেন। তিনি সিআইডিকে আগামী ৯ এপ্রিলের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছেন।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘বিশ্ববার্তা’র সম্পাদক মুহম্মদ আরিফুর রহমান বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় শুনানীতে অংশগ্রহণ করেন জজ কোর্টের আইনজীবি এডভোকেট ব্যারিষ্টার নূরুল আজম।
মামলার নথি থেকে জানা যায়, উক্ত ‘দৈনিক পূর্বদেশ’ পত্রিকায় লিখিত ধারাবাহিক একটি প্রবন্ধে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং উম্মুল মুমিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আস ছানিয়াহ আশার আলাইহাস সালাম উনাদের শান মুবারকে অবমাননাকর লেখা প্রকাশ করা হয়েছে।

এর পূর্বে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি তাদেরকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। নোটিশে তাদেরকে সতর্ক করে বলা হয়, নোটিশ পাওয়ার ৭ কার্যদিবসের মধ্যে দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার প্রকাশক, সম্পাদক ও লেখককে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি অবমাননাকর মন্তব্যগুলো প্রত্যাহার করে নিতে হবে এবং পবিত্র দ্বীন ইসলামের অবমাননার জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় নোটিশদাতা আইনের আশ্রয় নেবেন বলে নোটিশে বলা হয়েছে।

পত্রিকাটিতে প্রকাশিত অবমাননাকর বক্তব্যের জবাবে নোটিশে বলা হয়, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মুমিনীন আছ ছানিয়াহ আশার আলাইহাস সালাম উনাদের সম্পর্কে উল্লেখিত মন্তব্যসমূহ সম্পূর্ণ ভ্রান্ত, অপমানজনক ও আক্রমণাত্মক। সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার আবির্ভাবের বহু আগে থেকেই দাসপ্রথা সমাজে প্রচলিত ছিল। পবিত্র দ্বীন ইসলাম দাসদের প্রতি মানবিক আচরণের জন্য নতুন আইন করেন যেন সমাজে দাসদের মর্যাদা বাড়ে এবং শেষ পর্যন্ত তারা স্বাধীন হয়ে যায়।

পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীস শরীফ থেকে বিভিন্ন উদ্ধৃতি দিয়ে নোটিশে বলা হয়, সম্মানিত ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার শরীয়তে দাস সংক্রান্ত যেসব বিধান আছে, সেগুলোর ফলশ্রুতিতে দাসপ্রথা সমাজ থেকে ধাপে ধাপে উচ্ছেদের ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

নোটিশদাতা বলেন, উক্ত লেখায় উম্মুল মুমিনীন হযরত আছ ছানিয়াহ আশার আলাইহাস সালাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র সম্পর্ক নিয়ে চরম অবমাননাকর মন্তব্য করা হয়েছে। নোটিশে বিভিন্ন ঐতিহাসিক প্রমাণ উপস্থাপন করে বলা হয়েছে, উম্মুল মুমিনীন হযরত আছ ছানিয়াহ আশার আলাইহাস সালাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিসবাতুল আযীম শরীফ (পবিত্র বিবাহ মুবারক) সম্পন্ন হয়েছিল। সুতরাং পত্রিকাটির অসত্য মন্তব্যের দ্বারা দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার প্রকাশক, সম্পাদক ও লেখক মুসলমানগণদের দ্বীনি অনুভূতিতে আঘাত করেছে। উদ্দেশ্যমূলকভাবে কোনো সম্প্রদায়ের দ্বীনি অনুভূতিতে আঘাত করাটা বাংলাদশে প্রচলিত দ-বিধির ২৯৫(ক) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ডিজিটাল মাধ্যমে এমন দ্বীনি অবমাননামূলক তথ্য সম্প্রচার করাটা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮-এর ২৮ ধারার অধীনে অপরাধ।

Facebook Comments