ইয়াওমুল আরবিয়া (বুধবার), ১৫ জুলাই ২০২০

৬৫ লাখ মেট্রিক টন সার আমদানির সিদ্ধান্ত

৬৫ লাখ মেট্রিক টন সার আমদানির সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামী পাঁচ বছরের জন্য আনুমানিক ২৫ হাজার কোটি টাকার ৬৫ লাখ মেট্রিক টন নন-ইউরিয়া সার আমদানির প্রস্তাবে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

প্রতিবছর ৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ১৩ লাখ মেট্রিক টন সার আমাদনি করা হবে। পাঁচ বছরে মোট ৬৫ লাখ টন সার আমদানিতে ব্যয় হবে ২৫ হাজার কোটি টাকা। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কমিটির সভায় এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবে নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোসাম্মাৎ নাসিমা বেগম এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, আগামী পাঁচ বছরের জন্য প্রতিবছর ১৩ লাখ মেট্রিক টন করে নন-ইউরিয়া সার আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে করে প্রতিবছর খরচ হবে ৫ হাজার কোটি টাকা।

বৈঠকে উপস্থাপিত প্রস্তাবনায় দেখা গেছে, অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাউন্টার গ্যারান্টির আওতায় প্রতিবছর আনুমানিক ৫ হাজার কোটি টাকা এলটিআর ঋণ গ্রহণের মাধ্যমে বিএডিসি (বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন) কর্তৃক এ সার আমদানি করা হবে। টেকসই খাদ্য নিরাপত্তার জন্য জনস্বার্থে এবং নিশ্চয়তার সঙ্গে সার আমদানির প্রয়োজনে ২০২০ সাল হতে ২০২৫ সাল পর্যন্ত সময়ে রাশিয়া, সৌদিআরব, মরক্কো, তিউনিশিয়া, জর্ডান, বেলারুশ এবং কানাডা থেকে জিটুজি চুক্তির মাধ্যমে এসব সার আমদানি করবে বিএডিসি।

চট্টগ্রাম ও ভোলায় নির্মাণ হচ্ছে ১৭০ সাইক্লোন শেল্টার:

অন্যদিকে, দুর্যোগ মোকাবিলায় ১৭০টি সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করছে সরকার। এর মধ্যে ভোলা জেলায় ৯৭টি এবং চট্টগ্রামে ৭৩টি সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করা হবে। এতে ব্যয় হবে ৯১৯ কোটি ৬২ লাখ টাকা। এসব সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ সংক্রান্ত দুটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দিয়েছে সরকরি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

জানা গেছে, ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইডিএ) এবং বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে অনুমোদিত ‘বহুমুখী দুর্যোগ আশ্রয়কেন্দ্র’ প্রকল্পের আওতায় চট্টগ্রাম জেলায় ৭৩টি সাইক্লোন শেল্টার ও তৎসংলগ্ন সংযোগ সড়ক নির্মাণ কাজের (প্যাকেজ নং এলজিইডি/এমডিএসপি/সিএইচআই/১৪-১৫/এনডব্লিউ-১০) ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ৩৮৯ কোটি টাকা ব্যয়ে এ শেল্টারগুলোর নির্মাণ কাজ পেয়েছে ওয়াহিদা কনস্ট্রাকশন। একই প্রকল্পের আওতায় অন্য একটি প্রস্তাবে ভোলা জেলায় ৯৭টি সাইক্লোন শেল্টার ও তৎসংলগ্ন সংযোগ সড়ক নির্মাণ কাজের (প্যাকেজ নং এলজিইডি/এমডিএসপি/সিএইচআই/১৪-১৫/এনডব্লিউ-১১) ক্রয় প্রস্তাবেরও অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ৫২৯ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে এ কাজটি বাস্তবায়নে কাজ পেয়েছে তমা কন্সট্রাকশন।

এছাড়া বৈঠকে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষ বাস্তবায়নাধীন ‘পায়রা সমুদ্র বন্দরের প্রথম টার্মিনাল এবং আনুষঙ্গিক সুবিধাদি নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ‘কন্সট্রাকশন অব টেম্পোরারি (সার্ভিস) জেটি ইউথ কানেকশন রোড এট পায়রা পোর্ট’ কাজের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ৬৭ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ব্যয়ে এটি বাস্তবায়নে নির্মাণ কাজের প্রস্তাবটি যৌথভাবে কাজ পেয়েছে আরবিএল, এনইএল ও এফকে লিমিডেট।

Facebook Comments