ইয়াওমুল ইসনাইন (সোমবার), ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

পরিত্যক্ত পলিথিনে দেড় কোটি টাকার ইয়াবা

কক্সবাজার সংবাদদাতা: কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে ৪৩ হাজার ৯৫০ পিস ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এ ঘটনায় নারীসহ দুইজনকে আটক করা হয়েছে। উদ্ধার করা ইয়াবার আনুমানিক মূল্য দেড় কোটি টাকা বলে জানায় বিজিবি।

আটক ব্যক্তিরা হলেন- টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের পশ্চিম সাতঘরিয়া পাড়া এলাকার মৃত হোসেন আলীর ছেলে আব্দুল মজিদ (৩৯) ও ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা ভাটিকামারী নিখরহাটি মোহাম্মদ মনির লিটনের স্ত্রী আছমা বেগম। আসমা বেগমের পেটের ভেতর থেকে তিন হাজার ৯৫০পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

সোমবার (২ ডিসেম্বর) দুপুর ১টার দিকে টেকনাফ-২ বিজিবি ব্যাটালিয়ন সদর দফতরে এক সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক লে. কর্নেল ফয়সল হাসান খান (পিএসসি) জানান, টেকনাফের সাতঘরিয়া পাড়ার আব্দুল মজিদের বাড়িতে ইয়াবার চালান মজুদ রাখার গোপন সংবাদের খবরে বিজিবির একটি দল সেখানে অভিযানে যায়। এসময় তার বসতঘরের পেছনে তল্লাশি চালিয়ে পরিত্যক্ত পলিথিনের একটি স্তূপ থেকে প্লাস্টিক মোড়ানো অবস্থায় ৪০ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। এসময় তাকে আটক করা হয়।

তিনি আরও বলেন, একই দিন দুপুরে টেকনাফ থেকে এক নারী ইয়াবা বহন করে ঢাকা নিয়ে যাচ্ছে খবরে বিজিবির আরেকটি দল হ্নীলার মৌলভীবাজারের নতুন ব্রিজ এলাকায় অভিযান চালায়। এসময় এক নারীর চলাচল দেখে সন্দেহ হলে থামিয়ে তল্লাশি করা হয়। সে তার পেটে ইয়াবা থাকার কথা স্বীকার করে। পরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে তার পেটে বহু সংখ্যক ক্যাপসুল রয়েছে বলে নিশ্চিত করা হয়। পরবর্তীতে কৌশলে তার পেট থেকে ৩ হাজার ৯৫০পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।’

সীমান্তে বিজিবি কঠোর অবস্থানে থাকায় ইয়াবা পাচারকারিরা ধরা পরছে উল্লেখ করে বিজিবির এই কর্মকর্তা বলেন, কোনও মাদক ব্যবসায়ী ও পাচারকারি ছাড়া পাবে না। ইয়াবাসহ ধৃতদের মাদক মামলা দিয়ে থানায় হস্তান্তরের প্রস্তুতি চলছে।

Facebook Comments