ইয়াওমুস সাবত (শনিবার), ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

এক লাফে পেঁয়াজের দাম ২৩০ টাকা কেজি

ভারতীয় পেঁয়াজসহ দুইজন ধরা

যশোর প্রতিনিধি : শোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া বাজারে পেঁয়াজের দাম ঘণ্টায় ঘণ্টায় বেড়েই চলছে। বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) নওয়াপাড়া বাজারের বিভিন্ন দোকানে ২২০ থেকে ২৩০ টাকা পর্যন্ত পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে।

এর আগে মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) একই বাজারে এক কেজি পেঁয়াজের দাম ছিল ১৪০ টাকা, বুধবার (১৩ নভেম্বর) তা বেড়ে ১৮০ টাকায় দাঁড়ায়। বৃহস্পতিবার তা ২০০ টাকার ওপরে চলে যায়।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে উপজেলার প্রধান বাজার নওয়াপাড়া ঘুরে দেখা যায়, ২২০ থেকে ২৩০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ কিনছেন স্থানীয়রা। হঠাৎ করে বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় সাধারণ ক্রেতাদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা বাজার মনিটরিংয়ের জোর দাবি জানিয়েছেন।

বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা উপজেলার বুইকরা গ্রামের সেলিম রায়হান বলেন, একদিন আগেই ১৫০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনেছি, আজ হঠাৎ ২২০ টাকা হওয়ায় আমার পেঁয়াজ কেনা সম্ভব হয়নি। পেঁয়াজ না কিনেই চলে যাব।

পেঁয়াজ কিনতে শাহজালাল বলেন, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। দুদিন আগে ১৪০ টাকা দরে পেঁয়াজ কিনেছি। আজ বাজারে এসে দেখি ২৩০ টাকা পেঁয়াজের কেজি। যে যার মতো করে পেঁয়াজ বিক্রি করছে, যেন দেখার কেউ নেই।

ক্রেতাদের অভিযোগ, নওয়াপাড়া বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা না থাকায় খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা তাদের খেয়াল খুশি মতো দাম হাঁকাচ্ছেন। অতি দ্রুত বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা কার্যকরের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন তারা।

নওয়াপাড়া বাজারের খুচরা পেঁয়াজ ব্যবসায়ী শেখ আবদুল্লাহ বলেন, পাইকারি দোকানে গিয়ে পেঁয়াজের দাম কেজি প্রতি ১৮০ টাকা চাওয়ায় না কিনে ফিরে এসেছি। দুদিন আগে ১২০ টাকা দরে পেঁয়াজ কিনে তা ১৪০ টাকায় বিক্রি করেছি। আজ ২২০ থেকে ২৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ।

নওয়াপাড়া বাজারের পাইকারি পেঁয়াজ ব্যবসায়ী ফরিদ সরদার বলেন, পাইকারি মোকামে পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ায় পেঁয়াজ কেনা সম্ভব হয়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন খুচরা ব্যবসায়ী বলেন, আজ সকালে বাচ্চু মিয়ার আড়ত থেকে ২০০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনেছি আমরা। অথচ তার গুদামে পর্যাপ্ত পরিমাণ পেঁয়াজ মজুত আছে। মূলত পেঁয়াজের দাম বাড়াচ্ছেন আড়তদাররা।

Facebook Comments