ইয়াওমুস ছুলাছা (মঙ্গলবার), ১১ আগস্ট ২০২০

৪ জনে একজনের ডায়াবেটিস-নিউমোনিয়ায় ঘন্টায় ১ শিশুর মৃত্যু

৪ জনে একজনের ডায়াবেটিস

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে প্রতি চারজন মানুষের মধ্যে একজন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। ডায়াবেটিস আছে এমন ৫০ শতাংশ রোগী জানেনই না যে, তাদের ডায়াবেটিস আছে। বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির (বাডাস) উদ্যোগে রাজধানীসহ সারাদেশে এক লাখেরও বেশি মানুষের ওপর পরিচালিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

পাশাপাশি, দেশে শিশুমৃত্যুর অন্যতম কারণ নিউমোনিয়া। ২০১৮ সালে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ১২ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশী শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সে হিসাবে দেশে প্রতি ঘণ্টায় গড়ে একজন শিশু মারা যাচ্ছে নিউমোনিয়ায়, যাদের বয়স পাঁচ বছরের নিচে। আন্তর্জাতিক এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

২০১৮ সালের নভেম্বরজুড়ে দেশের প্রতিটি উপজেলাসহ মোট ৮০০টি স্পটে ডায়াবেটিস পরীক্ষা করে ওই গবেষণা চালানো হয়। এ ছাড়া সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও বিভিন্ন সংবাদপত্রে কর্মসূচি নেয়া হয়।
এক লাখেরও বেশি মানুষের ডায়াবেটিস পরীক্ষা করতে গিয়ে বাডাস দেখেছে যে, তাদের ২৫ দশমিক ৬০ শতাংশ ব্যক্তি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। এ সংখ্যা এতদিনের অনুমিত সংখ্যার চেয়ে অনেক বেশি।

এক সংবাদ সম্মেলনে গবেষণা প্রতিবেদনটি তুলে ধরেন বাডাস সভাপতি অধ্যাপক এ কে আজাদ খান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ডায়াবেটিস মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। তবে এটি প্রতিরোধযোগ্য একটি রোগ। দেশব্যাপী গণসচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে রোগটি সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করে তুলতে পারলে বিপুলসংখ্যক জনগোষ্ঠীকে ডায়াবেটিস আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থেকে রক্ষা করা যেতে পারে।

জানা গেছে, বর্তমানে দেশে প্রায় ৭৩ লাখ লােক ডায়াবেটিসে আক্রান্ত বলে ধারণা করা হয় (সূত্র : আইডিএফ এটলাস , ২০১৭), যাদের প্রায় অর্ধেকই নারী। তাছাড়া এ কথাও উল্লেখ করতে হয় যে, ডায়াবেটিস আছে, এমন অর্ধেকেরও বেশি লোক জানেই না যে, তাদের ডায়াবেটিস আছে। এ ছাড়া বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশে ১০০ জনের মধ্যে ২০ জন গর্ভবতী নারীই গর্ভকালীন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হন, যাদের ৬৫ শতাংশই পরবর্তীকালে টাইপ- ১ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হন।

Facebook Comments