ইয়াওমুল ইসনাইন (সোমবার), ১৮ নভেম্বর ২০১৯

বৈদেশিক বাণিজ্যের ৫ ক্ষেত্রে নিম্নমুখী প্রবণতা

বাণিজ্য ফাঁদে পাচার হাজার কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রফতানি আয় কমেছে। কমেছে আমদানি ব্যয়। আমদানির জন্য লেটার অব ক্রেডিট (এলসি) খোলার হার কমেছে। পাশাপাশি কমেছে এলসি নিষ্পত্তির হারও। আর বৈদেশিক বাণিজ্যে স্থবিরতার কারণে কমে গেছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে নিম্নমুখী এই প্রবণতার চিত্র উঠে এসেছে।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, শিগগির এই সমস্যা হয়তো কেটে যাবে। কেননা, রফতানি খাত ইতিবাচক ধারায় ফিরলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও বাড়বে। এ ছাড়া, বৈদেশিক বাণিজ্য নিম্নমুখী হলেও প্রবাসী আয় কিছুটা শক্ত অবস্থানে রয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, গত সেপ্টেম্বরে রফতানি আয় হয়েছে ২৯১ কোটি ৫৮ লাখ ডলার। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে যা ছিল ৩১৪ কোটি ৫৫ লাখ ডালার। গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় রফতানি আয় কমেছে ৭ দশমিক ৩০ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে রফতানি আয় হয়েছে ৯৬৪ কোটি ৭৯ লাখ ৯০ হাজার ডলার। গত বছর একই সময়ে এই আয় ছিল ৯৯৪ কোটি ৬ লাখ ডলার। অর্থাৎ গত অর্থবছরের প্রথম তিন মাসের তুলনায় চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে রফতানি আয় কমেছে ২ দশমিক ৯৪ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের দ্বিতীয় মাস আগস্টে আমদানি বাবদ ব্যয় কমেছে ৮ দশমিক ৬৬ শতাংশ। এই অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে আমদানি বাবদ ব্যয় কমেছে ২ দশমিক ২৯ শতাংশ। এই সময়ে (জুলাই-আগস্ট) আমদানি হয়েছে (কাস্টম বেইজ ইমপোর্ট) হয়েছে ৯৩১ কোটি ৯৮ লাখ ডলার। আগের অর্থবছরের একই সময়ে যা ছিল ৯৫৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) গবেষক ড. জায়েদ বখত বলেন, অনেক দিন ধরেই খাদ্যশস্য আমদানি কমেছে, এর ফলে আমদানি ব্যয় কমে গেছে। এছাড়া সরকারের বড় বড় প্রকল্পের জন্য আমদানি আগের মতো করতে হচ্ছে না। আর রফতানিতে নেগিটিভ প্রভাব পড়ার কারণ ডলারের মূল্য। তবে সামনেই এই সমস্যা হয়তো কেটে যাবে বলে মনে করেন তিনি। এর কারণ হিসেবে জায়েদ বখত বলেন, ডলারের বিপরীতে টাকার মূল্য কমানো হয়েছে। এর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে রফতানি খাতে। আর রফতানি খাত ইতিবাচক ধারায় ফিরলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও বাড়বে।

এদিকে, আমদানি ব্যয় কমে যাওয়ার পাশাপাশি আমদানির জন্য এলসি খোলার হারও কমে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক তথ্য অনুযায়ী, জুলাই ও আগস্ট এই দুই মাসের তুলনায় আগের বছরের একই সময়ে এলসি খোলার হার কমেছে ৯ দশমিক ৯০ শতাংশ। শুধু আগস্টে এলসি খোলার হার কমেছে ১২ দশমিক ৪৩ শতাংশ। অর্থবছরের প্রথম দুই মাসের তুলনায় আগের বছরের একই সময়ে এলসি নিষ্পত্তির হার কমেছে শূন্য দশমিক ৬৭ শতাংশ। যদিও জুলাই মাসে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় খাদ্যশস্য (চাল ও গম) আমদানির জন্য এলসি খোলার পরিমাণ বেড়েছিল ১৫২ দশমিক ৭৮ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, ২০১৮ সালের জুলাইয়ে বিদেশ থেকে ৬ কোটি ৭৫ লাখ ডলারের খাদ্যশস্য আমদানির জন্য এলসি খোলা হয়। আর গত জুলাইয়ে এলসি খোলা হয়েছে ১৭ কোটি ৮ লাখ ডলারের। তবে পরের মাস আগস্টেই এলসি খোলার হার কমে গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকে তথ্যমতে, এ বছরের জুলাইয়ের তুলনায় আগের বছরের জুলাইয়ে খাদ্যশস্য এলসি নিষ্পত্তির হার কমেছে ৪০ দশমিক ২৩ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী, গত জুন পর্যন্ত সার্বিক আমদানির বাণিজ্য নিম্নমুখী ধারায় রয়েছে। জুনে আমদানি বাণিজ্যে প্রবৃদ্ধি হয়েছে মাইনাস ৮ দশমিক ৮৩ শতাংশ। এর আগের মে মাসেও প্রবৃদ্ধি হয়েছে মাইনাস ৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ। গত এপ্রিলে আমদানি বাণিজ্যে প্রবৃদ্ধি হয়েছে মাইনাস ৬ দশমিক ১২ শতাংশ।

Facebook Comments