ইয়াওমুস সাবত (শনিবার), ১৯ অক্টোবর ২০১৯

নতুন ২ প্ল্যান্টে দিনে ৬০ কোটি লিটার পানি

মিতব্যয়ী হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক: ই-কনফারেন্সের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার ওয়াসার তিনটি পানি শোধনাগারের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। হোটেল সোনারগাঁওয়ে এক অনুষ্ঠান থেকে তিনি প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন করেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী সবাইকে ওয়াসার পানি ব্যবহারে অপচয় রোধের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, বিল কমানোর চিন্তা থেকে হলেও পানি অপচয় করবেন না। কম পানি ব্যবহার করলে বিলও কম আসবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার মানুষের সেবায় বিশ্বাসী। সেই চিন্তা থেকেই আমরা রাজধানীবাসীর পানি সংকট নিরসনে বিভিন্ন উদ্যোগ নেই। নগরবাসীর জন্য পানি সুবিধা বাড়াতে ওয়াসার বিভিন্ন প্রকল্পের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পানির চাহিদা মেটাতে মাটির ওপরে পানির বিভিন্ন উৎস ও বৃষ্টির পানি ধরে রেখে ব্যবহারের চেষ্টা বাড়াচ্ছি। ভূগর্ভস্থ পানির অতিরিক্ত ব্যবহারের কারণে বিভিন্ন সমস্যা হয়। তাছাড়া আমরা সব বিভাগীয় শহর, জেলা-উপজেলা পর্যন্ত সুপেয় পানির ব্যবস্থা করছি। একেবারে ইউনিয়ন পর্যন্ত এটা করা হবে।

তিনি বলেন, মানুষকে যাতে শহরমুখী হতে না হয় সেই লক্ষ্যে কাজ করছি। তারা গ্রামে বসেই যেন সব সুবিধা পায়। বর্তমান যুগ ডিজিটাল যুগ। সবখানে ইন্টারনেট পৌঁছে যাচ্ছে। সব সেবা যেন গ্রাম থেকেও পাওয়া যায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ, ঢাকার চারপাশে চারটি নদী রয়েছে। তবে দূষণ একটা সমস্যা। আমরা দূষণ প্রতিরোধ এবং নদীগুলোর নাব্য বাড়ানোর চেষ্টা করছি। এসডিজি’র (সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা) ষষ্ঠ লক্ষ্যমাত্রা ও আমাদের সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায়ও সবার জন্য সুপেয় পানির কথা বলা হয়েছে। ডেল্টা প্ল্যান ২০৩০-এও এটা আছে। রাজধানীর চারপাশে নতুন জলাধার তৈরি করা হচ্ছে।

নতুন ২ প্ল্যান্টে দিনে ৬০ কোটি লিটার পানি:

পদ্মা (যশলদিয়া) পানি শোধনাগার (ফেজ-১) এবং সাভার উপজেলার তেতুলঝরা-ভাকুর্তা এলাকায় ওয়েলফিল্ড নির্মাণ (১ম পর্ব) প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঢাকা ওয়াসার নতুন এ দু’টি পানি শোধনাগার প্ল্যান্ট উদ্বোধনের ফলে দিনে আরও ৬০ কোটি লিটার বিশুদ্ধ পানি পেলো ঢাকাবাসী। এ দু’টি প্রকল্পের উদ্বোধন ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা এনভায়রনমেন্টালি সাসটেইনেবল ওয়াটার সাপ্লাই প্রকল্পের অধীন রূপগঞ্জের গন্ধর্বপুরে পানি শোধনাগার নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন।

লৌহজং উপজেলার পদ্মা যশলদিয়া পানি শোধন প্ল্যান্টের মাধ্যমে প্রতিদিন ৪৫ কোটি লিটার শোধিত পদ্মা নদীর পানি আসবে ঢাকায়। পদ্মার পানি ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে নিয়ে সেখান থেকে পাইপের মাধ্যমে ঢাকায় পাঠানো হবে। ৩ হাজার ৬৭০ কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্প স্থাপন করা হয়েছে।  ঢাকার ক্রমবর্ধমান পানি চাহিদা মেটাতে ২০১৫ সালের অক্টোবরে এ প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একটি চায়নিজ কোম্পানি এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে।

রাজধানী মিরপুর এলাকায় ভূগর্ভস্থ পানির ওপর ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে সাভারের তেতুলঝরা-ভাকুর্তা এলাকায় ওয়েলফিল্ড নির্মাণ (১ম পর্ব) প্রকল্প নির্মাণ করা হয়। এ প্রকল্প থেকে প্রতিদিন ১৫ কোটি লিটার পানি পাবে ঢাকাবাসী। ওয়াসা মিরপুর এলাকায় বর্তমানে ৩০ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করে আসছে প্রতিদিন। যার অধিকাংশই আছে আন্ডারগ্রাউন্ড ওয়াটার থেকে। ৫৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ প্রকল্প দক্ষিণ কোরিয়ার একটি কোম্পানি বাস্তবায়ন করে।

Facebook Comments