ইয়াওমুস সাবত (শনিবার), ১৯ অক্টোবর ২০১৯

অস্থিতিশীল হয়ে উঠছে বৈদেশিক মুদ্রাবাজার

অস্থিতিশীল হয়ে উঠছে বৈদেশিক মুদ্রাবাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক: অস্থিতিশীল হয়ে উঠছে বৈদেশিক মুদ্রাবাজার। চলমান পরিস্থিতিতে কমে যাচ্ছে রেমিট্যান্স প্রবাহ। একই সাথে কমছে রফতানি আয়। এতে বৈদেশিক মুদ্রার সরবরাহ কমে যাচ্ছে। কিন্তু ক্রমবর্ধমান চাহিদা। চাহিদা ও জোগানের মধ্যে পার্থক্য বেড়ে যাওয়ায় সঙ্কট বেড়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে প্রতি ডলার বিক্রি হচ্ছে ৮৪ টাকা ৫০ পয়সা। কিন্তু বাস্তবে আরো ১ থেকে ২ টাকা বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। এর বাইরে হঠাৎ করে খোলাবাজারেও চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় প্রতি ডলার কিনতে সাধারণ গ্রাহকের ব্যয় করতে হচ্ছে সাড়ে ৮৬ টাকা থেকে ৮৭ টাকা পর্যন্ত।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বাজার স্থিতিশীল রাখতে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ডলার লেনদেনের ওপর সীমা বেঁধে দিলেও সেটা প্রকৃতপক্ষে কার্যকর হচ্ছে না। বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে ব্যাংকগুলো আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারে ডলারের যে মূল্যের তথ্য দিচ্ছে বাস্তবে তার চেয়ে বেশি মূল্যে কেনাবেচা হচ্ছে। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকেরও তেমন করার কিছু নেই। কারণ চাহিদা জোগানের মধ্যে পার্থক্য বেড়ে যাওয়ায় বাজারে সঙ্কট কিছুটা বেড়ে যাচ্ছে। অনেক ব্যাংক বাধ্য হয়ে নীতিমালার ফাঁকফোকর দিয়ে বেশি দরে লেনদেন করছে।

সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গত মাসের চেয়ে চলতি মাসে ১০ কোটিরও বেশি ডলার কম আসবে। গত মাসে রেমিট্যান্স এসেছিল প্রায় দেড় শ’ কোটি ডলার। কিন্তু চলতি মাসের শেষে ১৪০ কোটি ডলারের কম আসবে রেমিট্যান্স। রেমিট্যান্স কমে যাওয়ার ধারা আগামী মাসেও অব্যাহত থাকতে পারে। অন্য দিকে কাক্সিক্ষত হারে রফতানি আয় হচ্ছে না; বরং তা কমে যাচ্ছে। যেমন- গত আগস্টে রফতানি আয় হয়েছে ২৮৪ কোটি ডলার, যেখানে আগের বছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল ৩২৩ কোটি ডলার; অর্থাৎ গত আগস্টে রফতানি আয় আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে কমে গেছে সাড়ে ১১ শতাংশ। এভাবেই বৈদেশিক মুদ্রার সরবরাহ কমে যাচ্ছে। কিন্তু বিপরীত দিকে চাহিদা কমছে না, বরং দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। আমদানি বেড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক মনে করছে এলএনজি ও কুইক রেন্টালের জন্য জ্বালানি তেল আমদানি ব্যয় বেড়ে যাচ্ছে।

Facebook Comments