ইয়াওমুস ছুলাছা (মঙ্গলবার), ১২ নভেম্বর ২০১৯

মাটি ছাড়াই সবজির চারা উৎপাদন

মাটি ছাড়াই সবজির চারা উৎপাদন

নিউজ ডেস্ক :  এখন আগাম শীতকালীন সবজি চাষের প্রস্তুতি চলছে দিনাজপুরের বিভিন্ন এলাকায়। বীজতলার পরিচর্যার পাশাপাশি জমি প্রস্তুতিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে কৃষকেরা। আর এই শীতকালীন সবজি চাষকে সামনে রেখে বিশেষ ব্যবস্থাপনায় মাটি ছাড়াই ৬ শতক জমিতে সবজির চারা উৎপন্ন করছেন নবাবগঞ্জের রহমত আলী। তবে সব মৌসুমের আগেই রহমত মাটি ছাড়াই সবজির চারা উৎপাদন এবং বিক্রি করছেন।

এরই মধ্যে মাটি ছাড়াই সবজির চারা উৎপন্ন করে নবাবগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউপি’র উত্তর মুরাদপুর বালার চড়া গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে রহমত আলী ওই চারা বিক্রিও শুরু করেছেন। সবজির চারা বিক্রি করার জন্য রাস্তার পার্শে সাইন বোর্ডে লেখা রয়েছে, ভাল ফলন ভাল দাম, ‘ফারমার্স হাবই’ সমাধান। সহযোগিতায় রয়েছে বেসরকারী সংস্থা এসএফএসএ বাংলাদেশ এবং সমন্বয়ে রয়েছে জিবিকে এন্টারপ্রাইজ লিঃ।

রহমত আলী জানান, মাটি ছাড়াই সবজির চারা উৎপাদন করার কাজে একটি বেসরকারী সংস্থা সহযোগিতা করেছে। ওই এনজিও সংস্থা তাকে সকল পরামর্শ প্রদানসহ উপকরন সরবরাহ করেছে।

চলতি বছরের গত মার্চ মাস থেকে এ পদ্ধতিতে চারা উৎপাদনের কাজ শুরু করেন। প্রথমে চারা তৈরীর জন্য ওই সংস্থার নিকট থেকে এ পর্যন্ত ১৬০টি ট্রে, কোকোবিট (নারিকেলের ছোবলার পচানো গুড়া), নেটসহ উপকরন ক্রয়ে খরচ পড়েছে ৩০ হাজার টাকা। একবারেই এসব ক্রয় করতে হয়েছে। তবে চারা বিক্রির পর কোকোবিট ক্রয় করতে হয়। কোকোবিট ১৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। একই ট্রে এবং নেট কয়েক বছর চলে যাবে কিনতে হবে না।

তিনি আরও জানান, প্রথমবারেই ১০ হাজার চারা উৎপন্ন করে বিক্রি করেছেন প্রায় ১৮ হাজার টাকা। এবারে উৎপন্ন করা চারা বিক্রি করে তার আরও লাভ বেশি আসবে। কারন প্রথমবারে যে উপরকনগুলো কেনা হয়েছিল, সেটি আর কিনতে হচ্ছে না বলে। এখন বেগুন, মরিচ, পেঁপে, পাতাকপি, ফুলকপিসহ নানা ধরনের সবজির চারা উৎপাদন করা হচ্ছে। এখানে সব মৌসুমের আগেই চারা উৎপন্ন করে বিক্রি করা যায়। এতে ভাল দাম পাওয়া যায়। অনেক কৃষক আগাম সবজির চারা কেনার জন্য অর্ডার দিচ্ছে। চাহিদা বাড়ছেই। তাই আমার চারা উৎপাদনে ট্রে’র সংখ্যা বাড়িয়ে আরও বড় আকার করার চেষ্ঠা করছি।

এ ব্যাপারে নবাবগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার আবু রেজা মোঃ আসাদুজ্জামান বিষয়টি তারা অবগত রয়েছেন কিন্তু সংশ্লিষ্ট কেউই তার সাথে যোগাযোগ রাখেন নাই।

Facebook Comments