ইয়াওমুল ইসনাইন (সোমবার), ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

শুধুমাত্র হিন্দুদের ফিরিয়ে নিতে চায় মিয়ানমার

শুধুমাত্র হিন্দুদের ফিরিয়ে নিতে চায় মিয়ানমার

নিউজ ডেস্ক : জাতিগত নিপীড়নের শিকার হয়ে বাংলাদেশের কক্সবাজারে পালিয়ে এসে আশ্রয় নিয়েছে লাখ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী। এদের অধিকাংশ মুসলিম হলেও হিন্দু ও বৌদ্ধ রোহিঙ্গা শরনার্থীও রয়েছে। তবে অন্যদের বাদ দিয়ে শুধু হিন্দু রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ফেরত নিতে মিয়ানমার সরকার মরিয়া হয়ে উঠেছে। অর্থসূচক

এ বিষয়ে সহযোগিতা চাইতে মিয়ানমারে নিযুক্ত জাতিসংঘের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শিরনা বার্গানারের শরণাপন্ন হয়েছে দেশটির সরকার। মিয়ানমার জাতিসংঘের বিশেষ দূতকে উত্তর রাখাইন রাজ্য থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা হিন্দু পরিবারগুলো প্রত্যাবাসনে সহায়তা করতে বলেছে।

দেশটির আন্তর্জাতিক সংস্থা ও অর্থনৈতিক বিভাগের মহাপরিচালক ইউ চ্যান আয়ে বলে, বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতামন্ত্রী ইউ কিউ থিন রাজধানী নেপোডিতে জাতিসংঘের বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শিরনা বার্গানারের সঙ্গে বৈঠক করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা হিন্দু পরিবারগুলো প্রত্যাবাসনে সহযোগিতা চায়।

ইউ চ্যান আয়ে আরো বলে, জাতিসংঘের বিশেষ এ দূত হিন্দু পরিবারগুলোর স্বদেশ প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে এর আগে বাংলাদেশকে রাজি করানোর চেষ্টা করেছিল। তবে সে সফল হয়নি। এজন্য মিয়ানমার আবার হিন্দুদের প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে সহায়তা করার জন্য তাকে অনুরোধ করেছে।

সে বলেছে, মিয়ানমার সরকার থেকে পাঠানো প্রতিনিধিরা কক্সবাজারের শরণার্থী শিবিরে বসবাসকারী আট শতাধিক হিন্দু পরিবারের মধ্যে চারশ’রও বেশি পরিবারের সদস্যদের নাগরিকত্ব যাচাই করেছে। এসব পরিবার স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসন করতে চেয়েছিল।তবে সে অভিযোগ করে বলেছে, বাংলাদেশ সরকার শুধু হিন্দু শরণার্থীদের ফেরত পাঠাতে চাচ্ছে না।

Facebook Comments