ইয়াওমুল আরবিয়া (বুধবার), ১৩ নভেম্বর ২০১৯

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ পিছিয়ে থাকার কারণ: মেধাপাচার

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ পিছিয়ে থাকার কারণ: মেধাপাচার

নিজস্ব প্রতিবেদক: ন্যাশনাল সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি পলিসি-২০১০ (সংশোধিত)-এ বলা হয়েছে, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পিছিয়ে থাকার বেশ কয়েকটি কারণের একটি হচ্ছে মেধা পাচার বা মেধাবী তরুণ্যের বিদেশে চলে যাওয়া।

মেধা পাচার ও দক্ষ জনশক্তির ইমিগ্রেশন সমস্যার বিষয়টি গুরুত্ব আরোপ করে তা বন্ধ করার কথাও নীতিমালায় বলা হয়েছে।

এতে বলা হয়, দেশে বিজ্ঞান থেকে পাস করা শিক্ষার্থীদের কর্মক্ষেত্র সীমিত।
ফলে শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান বিষয়ে পড়ালেখার আগ্রহ কমছে। এদিকে দেশে ৪০টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আসন সংখ্যা ৫০ হাজারের মতো।
অথচ উচ্চশিক্ষার জন্য স্বপ্ন দেখেন দেশের আট থেকে নয় লাখ শিক্ষার্থী।
আসন সংখ্যা কম থাকায় অনেকেরই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে উচ্চশিক্ষার স্বপ্নপূরণ হয় না।
আবার দেশে প্রথম সারির বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়তে খরচ হচ্ছে প্রচুর অর্থ।
বিপরীত দিকে বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একই টাকা যেমন পড়াশোনা করতে পারছে পাশাপাশি সুযোগ রয়েছে উপার্জন করার।
সবমিলিয়ে এমন সুযোগ হাত ছাড়া করতে চায় না তরুণরা।

রাজধানীর আইএলটিএস ও জিআরই শিক্ষা বিভিন্ন প্রষ্ঠিানগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা য়ায়, প্রতিনিয়ত তাদের প্রতিটি ব্যাচে চল্লিশ জনের বেশি করে শিক্ষার্থী ভর্তি হচ্ছে। এ রকম একেকটি প্রতিষ্ঠানে প্রতিদিন দশ থেকে বারোটি ব্যাচ পরিচালনা করা হয়।

শুধু শিক্ষার্থীই নয়, মেধাবী তরুণ পেশাজীবীরাও ভিড় করছেন বিদেশে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুসারে, ২০১৫ সালে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ১৫ জন শিক্ষক অনুমতি ছাড়াই বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। এর আগের বছরে এ সংখ্যা ছিল ১৪ জন।

মেধাবীদের বিদেশমুখী হওয়ার বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, বিষয়টিকে নেগেটিভভাবে দেখছি না। সারা বিশ্ব এখন গ্লোবাল ভিলেজ। এখন প্রশ্ন হচ্ছে- বিভিন্ন দেশে গিয়ে দেশের কথা মনে রাখছে কি না। তবে আমার কাছে আরো একটি বিষয় মনে হয় দেশে পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা না দিতে পারা, চাকরি না থাকা বিজ্ঞানী, প্রযুক্তিবিদ বা বিশেষজ্ঞদের প্রয়োজনীয় ল্যাব সুবিধা না দিতে পারার কারণে তারা বিদেশমুখী হচ্ছেন। এই সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য কাজ করা উচিত সরকারকে।

Facebook Comments