ইয়াওমুস ছুলাছা (মঙ্গলবার), ১৯ নভেম্বর ২০১৯

ঢাকার সাথে প্রত্যাবাসন চুক্তি চায় দিল্লি

ঢাকার সাথে প্রত্যাবাসন চুক্তি চায় দিল্লি

আরএফএন ডেস্ক : ভারতের আসাম রাজ্যে গত বছর ৪০ লাখ মানুষের নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়া হয়েছে। উগ্র হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকারের দাবি, এরা সবাই ‘অবৈধ অভিবাসী’। আর গত কয়েক বছর ধরে বিজেপি নেতারা প্রচারণা চালিয়ে আসছেন, এই ‘অবৈধ অভিবাসী’রা নাকি আসলে বাংলাদেশের নাগরিক!

যদিও বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে এই দাবিকে অস্বীকার করা হয়েছে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভয়েস অব আমেরিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেছে, ভারতে কোনো বাংলাদেশি অবৈধভাবে নেই।

আগামী ৭ আগস্ট ভারত সফরে যাবেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তখন সেদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিজেপি প্রধান অমিত শাহের সাথে তার বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

দু’দেশের নেতাদের এই বৈঠককে সামনে রেখে আজ মঙ্গলবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ইকোনমিক টাইমস একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে জানানো হয়েছে, ৭ আগস্ট বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে বৈঠকে অবৈধ অভিবাসীর প্রসঙ্গটি উত্থাপন করতে পারেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এদিন ভারতের রাজধানী নয়া দিল্লিতে এই দু’নেতার মধ্যে বৈঠক হওয়ার কথা। বৈঠকে আরো উঠে আসতে পারে সীমান্তে পাচার, ভারতীয় ভুয়া মুদ্রা, ভারতীয় বিদ্রোহী গ্রুপ, রোহিঙ্গা শরণার্থী ও জনগণ সম্পৃক্ত বিভিন্ন ইস্যু।

সংবাদমাধ্যমটি আরও বলেছে, আসামের নাগরিকপঞ্জি থেকে বাদ পড়েছে প্রায় ৪০ লাখ মানুষ। এর প্রেক্ষিতে ঢাকার সাথে একটি প্রত্যাবাসন বিষয়ক চুক্তি করতে খুব বেশি আগ্রহী ভারত। তাই গত ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশে এবং মে মাসে ভারতের জাতীয় নির্বাচনের পরে এটাই হবে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে প্রথম দ্বিপক্ষীয় বৈঠক। একই সঙ্গে ভারতে নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়ার পর এটাই হবে বিদেশী কোনো নেতার সঙ্গে অমিত শাহের প্রথম বৈঠক। আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে তার ৬ দফা বৈঠক হতে পারে বলে জানানো হয়েছে রিপোর্টে।

Facebook Comments