ইয়াওমুল জুমুআ (শুক্রবার), ২২ নভেম্বর ২০১৯

ভারতের আপত্তির মুখে সৌদি ফিরে গেলেন যুবরাজ সালমান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আপত্তির মুখে পাকিস্তান থেকে সরাসরি ভারতে না এসে সৌদি আরব ফিরে গেছেন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। দু’দিনের পাকিস্তান সফর শেষে সেখান থেকে তার সরাসরি নয়া দিল্লি আসার শিডিউল ছিল। কিন্তু এতে আপত্তি জানিয়েছে ভারত। এ জন্য পাকিস্তান সফর গুটিয়ে নিয়ে সোমবারই সৌদি আরব ফিরে যান তিনি। সেখান থেকে আজ মঙ্গলবার তার নয়াদিল্লি আসার কথা রয়েছে। এ খবর দিয়েছে ভারতের অনলাইন ইন্ডিয়া টুডে ও টাইমস নাউ।

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের পালওয়ামায় সম্প্রতি আত্মঘাতী বোমা হামলা চালায় পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী জৈশ ই মোহাম্মদ। এতে কমপক্ষে ৪০ জন সিআরপিএফ সদস্য নিহত হন।

এ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা তুঙ্গে রয়েছে। পাকিস্তান তার নিয়ন্ত্রণ রেখায় সেনাবাহিনীকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রেখেছে। ভারত ওই হামলার জন্য পরিণতি ভোগ করতেই হবে বলে হুমকি দিয়েছে পাকিস্তানকে। এই উত্তেজনার সময়েই পাকিস্তান সফর করলেন সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। তিনি তাদের সঙ্গে ২০০০ কোটি ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর করেছেন। সৌদি আরবে বন্দি পাকিস্তানি কমপক্ষে ২০০০ নাগরিককে মুক্তি দেয়ার তাৎক্ষণিক নির্দেশ দিয়েছেন। নিজেকে ‘সৌদি আরবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত’ হিসেবে বিবেচনার আহ্বান জানিয়েছেন। এসব বিষয়ে ভারত খুব সতর্ক দৃষ্টি রেখেছে। ভারত চায় নি তিনি সরাসরি পাকিস্তান থেকে ভারত সফরে আসেন। এ জন্য পাকিস্তান সফর শেষ করে সোমবারই প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানকে সৌদি আরবে উড়াল দিতে হয়। এতেই ফুটে উঠেছে পাকিস্তান ইস্যুতে কতটা কঠিন অবস্থানে রয়েছে ভারত।

মঙ্গলবার সৌদি আরব থেকে প্রিন্স মোহাম্মদের নয়া দিল্লির পথে উড়াল দেয়ার কথা রয়েছে। তিনি পৌঁছানোর পর পাকিস্তান মদতপুষ্ট সন্ত্রাসের ইস্যুটি শক্তভাবে তুলে ধরবে ভারত। এ সময়ে দু’দেশের মধ্যে বিনিয়োগ, পর্যটন, গৃহায়ণ, তথ্য ও সম্প্রচার বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ ৫টি চুক্তি স্বাক্ষর হতে পারে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব টিএস তিরুমূর্তি বলেছেন, রাজনৈতিক, নিরাপত্তা, বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে অংশীদারিত্ব গাঢ় করার ইচ্ছা রয়েছে সৌদি আরবের। ভারতের বিদ্যুত নিরাপত্তার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ হলো সৌদি আরব। কারণ, ভারতের শতকরা ১৭ ভাগ বা তারও বেশি অশোধিত তোল এবং শতকরা ৩২ ভাগ এলপিজি সরঞ্জামের সরবরাহদাতা হলো সৌদি আরব। ২০১৭-০১৮ অর্থ বছরে ভারত ও সৌদি আরবের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য হয়েছে ২৭৪৮ শত কোটি ডলারের। এর মধ্য দিয়ে বাণিজ্যে সৌদি আরবের চতুর্থ সর্ববৃহৎ অংশীদার হয়ে উঠেছে এ দেশটি।

ওদিকে পাকিস্তান সফর করে দেশটি ও এর প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমাম। তিনি ভারতের সঙ্গেও বন্ধন শক্তিশালী করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চলমান দ্বন্দ্বযুক্ত ইস্যুগুলোর শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য চেষ্টা করবেন তারা। এক্ষেত্রে সংলাপই উত্তম উপায় বলে মন্তব্য করা হয়েছে।

Facebook Comments