ইয়াওমুল খামিছ (বৃহস্পতিবার), ২১ নভেম্বর ২০১৯

দেশের মানুষ জামায়াতে ইসলামকে প্রত্যাখ্যান করেছে: প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষ জামায়াতে ইসলামকে প্রত্যাখ্যান করেছে। জামায়াতকে নিষিদ্ধ করতে আদালতে চলমান মামলার রায় শিগগিরই হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভান্ডারীর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে সংসদ নেতা এই আশা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, ‘জামায়াতকে নিষিদ্ধ করার বিষয়ে কোর্টে একটা মামলা রয়ে গেছে। রায়টা যতক্ষণ পর্যন্ত না হয় ততক্ষণ পর্যন্ত আমার মনে হয় কিছু করতে পারি না।’তিনি আরো বলেন, ‘জামায়াত যুদ্ধাপরাধী দল। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতার নির্মমভাবে হত্যার পর জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল করে বিচারকার্য বন্ধ করে দেয় এবং তাদের (জামায়াতের) রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়। ভোটের অধিকার দেয়।’

হাসিনা বলেন, `যেটি আমাদের সংবিধানে ছিল না সেই সংবিধানের ১২ অনুচ্ছেদ বিলুপ্ত করে দেওয়া হয় এবং ৩৮ অনুচ্ছেদের আংশিক সংশোধনের মাধ্যমে তাদের রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিল জিয়াউর রহমান।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য একটি দলের নিবন্ধন প্রয়োজন। নির্বাচন কমিশন তাদের যে সকল শর্ত দিয়েছিল সেগুলো তারা পূরণ করতে পারেনি বলে তাদের নিবন্ধন দেওয়া হয়নি। কিন্তু নিষিদ্ধ করার জন্য কোর্টে একটি মামলা রয়ে গেছে। মামলার রায়টা যতক্ষণ পর্যন্ত না হবে সেখানে আমরা মনে হয় কিছু করতে পারি না। এটা খুব ন্যক্কারজনক যে নিবন্ধিত না, সেই অবস্থায়ও তারা নিজেদের নামে বিএনপি’র সঙ্গে একযোগে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জোট করে ধানের শীষ নিয়ে প্রার্থী হয়েছিল। তবে এ দেশের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই তারা তাদের ভোট দেয়নি সম্পূর্ণভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যারা অপরাধী, মানুষ খুন করা থেকে শুরু করে মানি লন্ডারিং এবং ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাসহ বিভিন্ন মামলায় যারা সাজাপ্রাপ্ত। যারা গ্রেপ্তারকৃত তারা তো গ্রেপ্তার আছেই। কিন্তু যারা বিদেশে পালিয়ে আছে বা পলাতক তাদের ফেরত আনার ব্যাপারে ইতোমধ্যে আমাদের আলোচনা চলছে। আামি বিশ্বাস করি আমরা তাদের ফিরিয়ে এনে শাস্তি বাস্তবায়ন করতে পারব।

Facebook Comments