ইয়াওমুস ছুলাছা (মঙ্গলবার), ১২ নভেম্বর ২০১৯

এমপিদের বসতে হবে বেঞ্চে

নিজস্ব প্রতিবেদক:জাতীয় সংসদের নবম তলায় যে কক্ষে সংসদ নেতা সরকারি দলের এমপিদের নিয়ে সভা করেন, সেখানে ২১৫টির বেশি চেয়ার বসানোর জায়গা নেই। তাহলে আওয়ামী লীগের আড়াই শতাধিক এমপিকে নিয়ে সভা হবে কী করে?

এই সমস্যা মেটাতে আপাতত চেয়ার সরিয়ে বেঞ্চের ব্যবস্থা হচ্ছে। তাতে বসেই একাদশ সংসদের বিভিন্ন বিষয়ে দলের সিদ্ধান্ত ঠিক করবেন আওয়ামী লীগের আইন প্রণেতারা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, “সরকারি দলের সভাকক্ষে যাতে সবাই বসতে পারে সেজন্যই বেঞ্চ দেওয়া হবে।”

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনে ২৫৭টি আসনে জয় পেয়েছিল আওয়ামী লীগ। কিশোরগঞ্জে-১ আসনে বিজয়ী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম মারা যাওয়ায় এই মুহূর্তে আওয়ামী লীগের আসন ২৫৬টি।

গাইবান্ধা-৩ এবং কিশোরগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগ জয়ী হলে তাদের আসন আরও দুটি বাড়বে। সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হলে আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতিতে যুক্ত হবে আরও ৪৩টি আসন। সেক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন দলের আসন সংখ্যা ৩০০ ছাড়িয়ে যাবে।

তখন সংসদ ভবনে সরকারি দলের সভাকক্ষে আড়াইশ এমপির বসার ব্যবস্থা করলেও চলবে না। এ বিষয়টি নিয়েও সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের মাথা ঘামাতে হচ্ছে।

তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সরকারি দলের সভাকক্ষে মোট চেয়ার আছে ১৮৩টি। এর বাইরে অস্থায়ীভাবে দেওয়া হয় ৩২টি চেয়ার। মোট ২১৫ জন আইনপ্রণেতা সেখানে বসতে পারেন।

এতদিন ওই সভাকক্ষে হাতলওয়ালা চেয়ারের ব্যবস্থা ছিল। এবার বসার ব্যবস্থা পাল্টানোর প্রয়োজন দেখা দেওয়ায় প্রথমে হাতল ছাড়া চেয়ার দেওয়ার কথা ভাবা হয়েছিল।

কিন্তু তাতেও খুব বেশি সুবিধা না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত বেঞ্চ বসানোর নির্দেশনা দেওয়া হয় কর্মকর্তাদের। ওই সভাকক্ষের আঙ্গিক পাল্টানো যায় কিনা সে ব্যাপারেও চিন্তা-ভাবনা চলছে বলে সংসদ সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা জানান।
তিনি বলেন, “সভাকক্ষের ভেতরে একটি কাঠের দেয়াল আছে। সেটি সরিয়ে মঞ্চটা আরও পিছনে নিয়ে আসন বাড়ানো যায় কিনা ভেবে দেখা হচ্ছে। অবশ্য এ বিষয়ে চূড়ান্ত কোনো নির্দেশনা আমরা পাইনি।”

এক প্রশ্নের জবাবে ওই কর্মকর্তা বলেন, “সংসদ ভবনের নকশা মাথায় রেখেই সব করা হচ্ছে। কোনোভাবেই নকশা বহির্ভূত কাজ করা যাবে না।”

সংসদ ভবনের নবম তলায় বিরোধীদলের সভাকক্ষে আসন আছে ৮৮টি। নবম জাতীয় সংসদে বিএনপি একবার মাত্র ওই কক্ষে সভা করেছিল। আর দশম সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি কখনো ওই কক্ষ ব্যবহার করেনি।

একাদশ সংসদে ২২টি আসন নিয়ে বিরোধী দলের আসনে আবার বসতে যাচ্ছে জাতীয় পার্টি। আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হচ্ছে।

Facebook Comments