ইয়াওমুস ছুলাছা (মঙ্গলবার), ১২ নভেম্বর ২০১৯

যুদ্ধাপরাধী, রাজাকার তথা জামাতীদের হাক্বীকত তুলে ধরায় রাজারবাগ দরবার শরীফ উনার প্রতি জামাতীদের হুমকি শাহজাহানপুর থানায় জিডি

আর.এফ.এন নিউজ : যুদ্ধাপরাধী, রাজাকার তথা জামাতীদের হাক্বীকত তুলে ধরায় রাজারবাগ দরবার শরীফ উনার প্রতি জামাতীদের হুমকি শাহজাহানপুর থানায় জিডি


যুদ্ধাপরাধী রাজাকার সংগঠন জামাতীদের বিরুদ্ধে লেখালেখি করায় রাজারবাগ দরবার শরীফ উনার বিরুদ্ধে হুমকি দিয়েছে যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জামাত। ফোনের মাধ্যমে এ হুমকি প্রদান করা হয়। পাশাপাশি তারা লোক মারফতও এ খবর পৌঁছায়। নাউযুবিল্লাহ! এ ব্যাপারে গতকাল শাহজাহানপুর থানায় জিডি করা হয়েছে। জিডি নং ৮৩০।

সম্প্রতি যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জনৈক জামাতী সদস্য জামাতের পরিচয় দিয়ে বলে, তোমাদের আল ইহসান পত্রিকায় যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই শীর্ষক কলাম ছাপানোর কারণেই তাদের তথাকথিত জাতীয় বীর মইত্যা রাজাকার, মইজ্জা রাজাকার ইত্যাদি শহীদ হয়েছে। নাঊযুবিল্লাহ।

এর প্রতিশোধ নিতে তারা ৩০ ডিসেম্বরের আগেই মিছিলের নাম দিয়ে দরবার শরীফ উনার বিরুদ্ধে হামলা করবে এবং বিশেষ করে খ¦লীফাতুল্লাহ, খ¦লীফাতু রসূলিল্লাহ, আওলাদে রসূল হযরত ইমামুল উমাম রাজারবাগ শরীফের সাইয়্যিদুনা হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার এবং উনার মুখপাত্র এবং দৈনিক আল ইহসান ও মাসিক আল বাইয়্যিনাত সম্পাদক আল্লামা মুহম্মদ মাহবুব আলম আরিফ সাহেবসহ দরবার শরীফ উনার বিশেষ ক্ষতি করবে।

এ জন্য তাদের সংগঠন জামাত লোক রিক্রুট করেছে। এদিকে গত পরশু দরবার শরীফের ভিতরে তাদের এক মহিলা কুচক্রী প্রবেশ করে। এরপর শাহজাহানপুর থানা মহিলা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্যায়সহ গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে অবগত করা হয়েছে এবং দরবার শরীফ উনার মধ্যে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সম্মানিত রাজারবাগ দরবার শরীফের সুমহান প্রতিষ্ঠাতা ও পৃষ্ঠপোষক রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম বর্তমান যামানার ইমাম এবং সুমহান মুজাদ্দিদ। উনার প্রতিষ্ঠিত ও পৃষ্ঠপোষকতায় পরিচালিত দৈনিক আল ইহসান ও মাসিক আল বাইয়্যিনাত পত্রিকায় মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে এবং ধর্মব্যবসায়ী, যুদ্ধাপরাধী, মৌলবাদী, সন্ত্রাসবাদীদের বিপক্ষে তাদের বিভিন্ন অপতৎপরতা তুলে ধরা হয়।

১৯৯৩ সালেই মাসিক আল বাইয়্যিনাত পত্রিকার ১২তম সংখ্যার সম্পাদকীয়তে ‘রাজাকার জামাত-শিবিরের বিচার করে এদেরকে চিরতরে নিষিদ্ধ করার কথা বলা হয়েছে। ১৯৯০ সালে ‘জামায়াত পরিচালিত ইসলামী আন্দোলনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ’ নামক বই ছাপিয়ে রাজাকার, যুদ্ধাপরাধী জামাত-শিবিরের কথিত ইসলামী আন্দোলন যে ‘ইসলামীই নয়’ বরং ইসলামের নামে খাঁটি ও নির্ভেজাল ধর্মব্যবসা তা তিনি প্রমাণ করেছেন।

মাসিক আল বাইয়্যিনাত এবং দৈনিক আল ইহসান শরীফে নিয়মিত দ্বীন ইসলাম উনার আলোকে যুদ্ধাপরাধীদের তৎকালীন এবং বর্তমান ধর্মব্যবসা ফাঁস করা হয়। এজন্য যুদ্ধারপরাধী রাজাকার জামাতীরা পূর্বেও এরকম হামলার হুমকি দিয়েছে। এমন কী খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, আওলাদে রসূল হযরত ইমামুল উমাম রাজারবাগ শরীফের সাইয়্যিদুনা হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনাকে লক্ষ্য করে রাজারবাগ শরীফ মসজিদে গুলিও করেছে। রাজারবাগ দরবার শরীফকে বোমা মেরে উড়িয়ে দেয়ারও হুমকি দিয়েছে।

যা দৈনিক প্রথম আলোসহ বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় এসেছে।

Facebook Comments