ইয়াওমুল খামিছ (বৃহস্পতিবার), ২৮ মে ২০২০

রাতে আসছেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত

আর.এফ.এন নিউজ :

আজ রাতেই জরুরি সফরে ঢাকা আসছেন জাতিসংঘ মহাসচিবের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ক্রিস্টিন এস বার্গনার। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়াকে সামনে রেখে জাতিসংঘ দূতের এই সফর খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।

কূটনৈতিক সূত্র মতে, ঢাকায় গত সপ্তাহে প্রত্যাবাসন বিষয়ক জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে ১৫ই নভেম্বর প্রথম ব্যাচ পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ নিয়ে প্রশ্ন তুলে অব্যাহত উদ্বেগ জানাচ্ছে জাতিসংঘসহ বিশ্ব সম্প্রদায়। মানবাধিকার সংগঠনগুলো স্বপ্রণোদিত প্রত্যাবাসনের তাগিদ দিয়ে তড়িঘড়ি করে তাদের না পাঠানোর অনুরোধ করেছে।

সূত্র জানায়, চীনের মধ্যস্থতায় প্রতীক্ষিত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই’র উপস্থিতিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ও মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলরের দপ্তরের মন্ত্রী তিন সোয়ের মধ্যে এ পর্যন্ত দু’দফা আলোচনা হয়েছে। নির্বাচনের আগের প্রত্যাবাসন প্রক্রয়া শুরু করা এবং অন্তত একটি ব্যাচ পাঠানোর বিষয়ে মন্ত্রী পর্যায়ের ত্রিপক্ষীয় ওই বৈঠকে আলোচনা হয়েছে।

প্রত্যাবাসনকে বাংলাদেশের জন্য কোনো ইস্যু না বানাতেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে ঢাকা। পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক বর্তমানে বেইজিংয়ে অবস্থান করছেন। পররাষ্ট্র সচিবের বেইজিং যাত্রা এবং জাতিসংঘ দূতের ঢাকা সফরের যোগসূত্র রয়েছে বলে মনে করছেন পেশাদার কূটনীতিকরা।

এমনও বলা হচ্ছে- সচিবের চীন সফরটি পূর্ব নির্ধারিত হলেও সেখানে নিশ্চিতভাবে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উদ্বেগের বিষয় রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়ে আলোচনা হবে।
সূত্র মতে, পররাষ্ট্র সচিব চীনের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার আগেই পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারীর কার্যালয়ের মধ্যে দফায় দফায় চিঠি চালাচালি ও আলোচনার প্রেক্ষিতে জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের রোহিঙ্গা সংক্রান্ত বিশেষ দূত ক্রিস্টিন এস বার্গনারের বাংলাদেশ সফরের সূচি চূড়ান্ত হয়।

আজ বুধবার রাতে তিনি ঢাকায় পৌঁছাবেন। কাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় কাটিয়ে তিনি কক্সবাজার যাবেন। গত জুলাইতে সর্বশেষ ঢাকা সফরকারী বার্গনারের এবারের বাংলাদেশ সফরের মূল ফোকাস হচ্ছে কক্সবাজার।

আগামী ১১ই নভেম্বর পর্যন্ত তিনি রোহিঙ্গাদের আশ্রয়স্থলে অবস্থান করবেন। মূলত তিনি প্রত্যাবাসনের মাঠ পর্যায়ের প্রস্তুতি সরজমিন দেখবেন এবং এ নিয়ে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরবেন।

Facebook Comments