ইয়াওমুল আরবিয়া (বুধবার), ০৩ জুন ২০২০

বিজিবি-বিএসএফ সীমান্ত সম্মেলন শুরু হচ্ছে ঢাকায়

ঢাকায় শুরু হচ্ছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এবং ভারতের বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের (বিএসএফ) মধ্যে মহাপরিচালকপর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলন। আগামীকাল  মঙ্গলবার সকাল ১০টায় ঢাকার পিলখানায় বিজিবি সদর দপ্তরের সম্মেলন কক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে এই সম্মেলন।

বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মুহসিন রেজা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সম্মেলনে যোগদানের উদ্দেশে বিএসএফ মহাপরিচালক কে কে শর্মার নেতৃত্বে ১০ সদস্যের ভারতীয় প্রতিনিধিদল আজ সোমবার ঢাকায় এসে পৌঁছেছে। প্রতিনিধিদলে বিএসএফ সদর দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ভারতের স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাও রয়েছেন।

সম্মেলনে বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মুহম্মদ সাফিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল অংশগ্রহণ করবেন।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে বিজিবির অতিরিক্ত মহাপরিচালকবৃন্দ, বিজিবি সদর দপ্তরের সংশ্লিষ্ট স্টাফ অফিসার ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, যৌথ নদী কমিশন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, সার্ভে অব বাংলাদেশ এবং ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা প্রতিনিধিত্ব করবেন।

একই সঙ্গে সীমান্ত সম্মেলন উপলক্ষে বিএসএফ পরিচালিত বিএসএফ ওয়াইভস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের চার সদস্যের প্রতিনিধিদল বিজিবি পরিচালিত ‘সীমান্ত পরিবার কল্যাণ সমিতির বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পরিদর্শন করবে।

আজ সন্ধ্যায় পিলখানায় এক প্রীতি কাবাডি ম্যাচের আয়োজন করা হয়। দুই বাহিনীর মহাপরিচালক ও প্রতিনিধি দলের সদস্যরা এই কাবাডি ম্যাচ উপভোগ করেন। অনানুষ্ঠানিকভাবে প্রীতি ম্যাচকেও সম্মেলনের অংশ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

পাঁচ দিনের এই সম্মেলনে সীমান্ত এলাকায় নিরস্ত্র বাংলাদেশি নাগরিকদের গুলি, হত্যা, আহত করা, বাংলাদেশি নাগরিকদের অপহরণ, আটক, অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম, অস্ত্র, গোলা-বারুদ ও বিস্ফোরকদ্রব্য পাচার, সীমান্তের অপর প্রান্ত থেকে বাংলাদেশে ফেনসিডিল, মদ, গাঁজা, হেরোইন এবং ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্যের চোরাচালান, আন্তর্জাতিক সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে উন্নয়নমূলক নির্মাণ কাজ, আখাউড়া আইসিপির ভারতীয় অংশে ইটিপি স্থাপন এবং উভয় বাহিনীর মধ্যে পারস্পরিক আস্থা বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা হবে। বৈঠক শেষে আগামী ২৬ এপ্রিল সম্মেলনের যৌথ আলোচনার দলিল স্বাক্ষরিত হবে।

প্রতিনিধি দল বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে বিদ্যমান পারস্পরিক সুসম্পর্ক ও সৌহার্দ্য আরো বৃদ্ধির লক্ষ্যে ভারতীয় প্রতিনিধিদল দেশের বিভিন্ন দর্শণীয় স্থান পরিদর্শন করবেন। এ ছাড়া আগামী ২৭ এপ্রিল পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা আইসিপিতে বিজিবি মহাপরিচালক ও বিএসএফ মহাপরিচালক যৌথভাবে উভয় বাহিনীর জয়েন্ট রিট্রিট সেরিমনি উদ্বোধন করবেন।

Facebook Comments