ইয়াওমুল খামিছ (বৃহস্পতিবার), ০৬ আগস্ট ২০২০

ফিরে গেলেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা

ডিভিশনের আবেদনপত্র কারা কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করতে না পেরে ফিরে গেছেন খালেদা জিয়ার তিন জন আইনজীবী। প্রায় দুই ঘণ্টা কারা ফটকে অপেক্ষার পরও কারা কর্তৃপক্ষ এই আবেদনপত্রটি না নেওয়ায় বিষয়টি দুঃখ ও হতাশাজনক বলে উল্লেখ করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। এ সময় আরও দুই আইনজীবী জাকির হোসেন ভূঁইয়া ও এসএম জুলফিকার উপস্থিত ছিলেন।
ফিরে যাওয়ার আগে রাত ৮টা ৪৫ মিনিটে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা খালেদা জিয়ার বয়স, তার পলিটিক্যাল স্ট্যাটাস ও শারীরিক অসুস্থতার কথা বিবেচনায় রেখে ডিভিশনের আবেদনপত্র নিয়ে এসেছিলাম। তার হাঁটুতে দুইবার নি- রিপ্লেসমেন্ট করা হয়েছে। সেজন্য প্রতিদিন চেকআপ প্রয়োজন। তাই তাকে প্রফেশনাল ডাক্তার এবং অ্যাটেন্ডেন্স দেওয়ার জন্য আমরা আবেদন করেছি। এছাড়া খালেদা জিয়াকে যেন হাইজেনিক ওয়াশরুম দেওয়া হয় তার জন্যও আমরা আবেদনপত্রে উল্লেখ করেছি।’
কারা কর্তৃপক্ষ হয়তো ভয় পেয়ে এই আবেদনপত্রটি গ্রহণ করেনি বলে মন্তব্য করেন বিএনপি পক্ষের এই আইনজীবী।
তিনি বলেন, ‘কারাগারে ২৪ ঘণ্টা ডিউটি। কিন্তু তারা কেন আবেদনপত্র নিতে আসলেন না বা গ্রহণ করলেন না তা সত্যিই দুঃখ ও হতাশাজনক। তারা হয়তো ভয় পেয়েছেন। আবেদনপত্র নিলে হয়তো উপরের কর্তৃপক্ষের বিরাগভাজন হতে পারেন। সেজন্য হয়তো তারা আবেদনটি গ্রহণ করেননি। আমরা আশা করেছিলাম তারা এখানে আসবেন এবং আবেদনপ্রতটি গ্রহণ করবেন। আমরা আগামীকাল আবার আবেদনটি নিয়ে এখানে আসবো এবং সেটি হস্তান্তরের চেষ্টা করবো।’
উল্লেখ্য, দুর্নীতি দমন কমিশনের দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে এ মামলার অপর আসামি তার বড় ছেলে তারেক রহমানসহ বাকি পাঁচজনকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি তাদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। রায়ের পর খালেদা জিয়াকে রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডে পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। বর্তমানে তাকে সেখানেই রাখা হয়েছে।

Facebook Comments