আহাদ (রবিবার), ২২ মে ২০২২

১ কেজি বোরো ধান চাষে ৬৫০ লিটার পানি!

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রতিকেজি বোরো ধান উৎপাদনে পানির প্রয়োজন ৫৫০-৬৫০ লিটার। অথচ দেশের নিয়ন্ত্রিত সেচ ব্যবস্থার কারণে অপচয় হচ্ছে পানি। বর্তমানে এক হাজার থেকে ১৬শ’ লিটার পানি দিয়ে বোরো ধান উৎপাদন করছেন কৃষকরা।

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) গবেষণায় উঠে এসেছে এ তথ্য। গত রোববার (১৬ জানুয়ারি) ‘উত্তর-পশ্চিম বাংলাদেশের ভূগর্ভস্থ পানির স্থায়িত্ব ও ধান উৎপাদন’ শীর্ষক এ গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

কমনওয়েলথ সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ অর্গানাইজেশন, ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন কুইসল্যান্ড, এসিএআইআর ও অস্ট্রেলিয়ান এইডের সহযোগিতায় এই গবেষণা হয়।

গবেষণার ফলাফলে দেখা গেছে, বিগত ১০ বছরে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে বোরোর এলাকা বাড়েনি। তবে উন্নত জাতসহ অন্যান্য কারণে বোরোর ফলন বাড়ছে। এছাড়া বোরো ধানের উচ্চ ফলনশীল জাতের ব্যবহার ও ‘ক্রপিং প্যাটার্ন বেইজড’ ফসল চাষাবাদের মাধ্যমে জমির উৎপাদনশীল ও ফসলের পানি ব্যবহার দক্ষতা আরও বাড়ানো সম্ভব।

কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বোরো ধানে পানির অপচয় নিয়ে যে বিভ্রান্তি সমাজে প্রচলিত ছিল ব্রি ও সহযোগী সংস্থাসমূহের এই গবেষণা ফলাফলের মাধ্যমে তার অবসান হবে। পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানের উচিত এই ধরনের বিভ্রান্তি নিরসনে একযোগে গবেষণা পরিচালনা করা।

বিশেষজ্ঞ প্যানেলের আলোচনায় প্রফেসর ইমিরেটাস ড. এম এ সাত্তার ম-ল বলেন, দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ার জন্য বোরো ধানের আবাদই একমাত্র দায়ী নয়। শুষ্ক মৌসুমে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের নদী-নালা, খাল-বিলে পানির প্রবাহ কম থাকায় বেজ ফ্লো হিসেবে ভূ-গর্ভস্থ পানির একটি অংশ নদীতে চলে যাচ্ছে। ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলনের ফলে বন্যার পানি প্রথমে ভূ-গর্ভস্থ পানির সেই খালি জায়গা পূরণ করার ফলে বন্যার তীব্রতা হ্রাস পাচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রাক্তন মহাপরিচালক ড. হামিদুর রহমান বলেন, দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে ভূগর্ভস্থ পানির স্থায়িত্ব ম্যানেজমেন্ট করতে হলে সমন্বিত উদ্যোগসহ ভূ-পৃষ্ঠস্থ পানির ব্যবহার বৃদ্ধি করতে হবে। নদী-নালা, খাল-বিলে পানির সংরক্ষণের পরিমাণ ব্যবহার বাড়াতে পারলে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে সাফল্যজনকভাবে ধানসহ অন্যান্য ফসল চাষাবাদ সম্ভব হবে।

Facebook Comments Box