ইয়াওমুল খামিছ (বৃহস্পতিবার), ০৫ আগস্ট ২০২১

হাওড়ে বাঁধ নির্মাণে এবারও বিলম্ব

হাওড়ে বাঁধ নির্মাণে এবারও বিলম্ব

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা: বন্যার পানি হাওড়ে ঢুকে যাতে ফসল তলিয়ে না যায়, এজন্য প্রতি বছর নির্মাণ করা হয় হাওড় রক্ষাবাঁধ। শুষ্ক মৌসুমে চলে বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারকাজ। এ বছর ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে বাঁধ নির্মাণকাজ শুরু করার কথা। তবে গতকাল পর্যন্ত সুনামগঞ্জে হাতেগোনা দু-তিনটি ছাড়া কোনো হাওড়েই বাঁধের কাজ শুরু হয়নি।

সুনামগঞ্জে হাওড়ে বাঁধ নির্মাণের জন্য এবার ৭০০টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠনের কথা। তবে গতকাল পর্যন্ত বেশির ভাগ উপজেলায় কোনো কমিটিই গঠন করা যায়নি, কাজ শুরু তো অনেক দূর। কাজ শুরু করতে বিলম্বের কারণে নির্ধারিত সময়ে বাঁধ নির্মাণ শেষ হওয়া নিয়ে দেখা দিয়েছে শঙ্কা। বিলম্বে শুরুর কারণে শেষের দিকে তড়িঘড়ি করে দায়সারাভাবে কাজ শেষ করার আশঙ্কা করছেন কৃষকরা।

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলায় প্রায় ৬০টি পিআইসির মাধ্যমে বাঁধের কাজ করার কথা। তবে এখন পর্যন্ত একটি পিআইসিও গঠন করা হয়নি ওই উপজেলায়।

এ উপজেলার সাচনাবাজার এলাকার এক কৃষক বলেন, এখন পর্যন্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটিই গঠন করা হয়নি। কবে কমিটি গঠন হবে আর কবে বাঁধ নির্মাণ শুরু হবে তা বুঝতে পারছি না। এভাবে শুরুতেই গড়িমসি করলে পরে আমাদের ফসল নিয়ে বিপদে পড়তে হবে।

এ বিষয়ে উপজেলার পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী রেজাউল করিম বলেন, পিআইসি গঠনের জন্য আমরা সবকিছু প্রস্তুত করে রেখেছি। এমপি মহোদয়ের জন্য অপেক্ষা করছি। তিনি দু-একদিনের মধ্যে এলাকায় আসবেন। এলেই কমিটি গঠন করা হবে। এদিকে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার কমিটি গঠন হয়েছে। যদিও ওই কমিটি এখনো অনুমোদন পায়নি বলে জানান উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী আশরাফুল সিদ্দিকী।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, জেলায় ছোট-বড় ৪২টি হাওড়ে এ বছর প্রাথমিকভাবে ৮৫৬ কিলোমিটার বাঁধ মেরামত, সংস্কার ও নির্মাণ করা হবে। এগুলো নির্মাণ করতে ১১ উপজেলায় প্রায় ৭০৪টি পিআইসি গঠন করার কথা। জেলায় বাঁধ নির্মাণে প্রাথমিকভাবে মন্ত্রণালয় ৬৭ কোটি ৪৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। গত বছর বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল ৯০ কোটি টাকা। ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাঁধের কাজ শেষ হওয়ার কথা।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা বলছেন, হাওড় থেকে এবার পানি নেমেছে দেরিতে। এখনো কয়েকটি হাওড়ে পানি রয়েছে। ফলে বাঁধ নির্মাণকাজ নির্ধারিত সময়ে শুরু করা যায়নি। নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়ায় হাওড়ের পানি দ্রুত নামছে না বলে জানান তারা।

২০১৭ সালে সঠিক সময়ে হাওড়ের ফসল রক্ষাবাঁধ নির্মিত না হওয়ায় অকাল বন্যায় তলিয়ে যায় বিস্তর্ঢু বোরো ফসল। সরকারি হিসাবে, ফসলরক্ষা বাঁধ ভেঙে ১৫৪ হাওড়ের ২ লাখ ২৩ হাজার ৮২ হেক্টর জমির বোরো ফসল তলিয়ে যায় ওই বছর, ক্ষতিগ্রস্ত হয় ১ লাখ ৬১ হাজার হেক্টর জমির ফসল। যদিও কৃষকদের হিসাবে এ ক্ষতির পরিমাণ ছিল প্রায় দ্বিগুণ।

ওই দুর্যোগের ফলে ২০১৭ সাল থেকে বাঁধ নির্মাণে ঠিকাদারিপ্রথা বাতিল করে কৃষকদের সংশ্লিষ্ট করে পিআইসির মাধ্যমে হাওড়রক্ষা বাঁধ নির্মাণের নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করে সরকার। নীতিমালা অনুযায়ী প্রতি উপজেলায় পিআইসির সভাপতি থাকবেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, আর জেলায় জেলা প্রশাসক। তবে প্রতিবারই নির্ধারিত সময়ে পিআইসি গঠন নিয়ে দেখা দিচ্ছে বিপত্তি। ফলে বাঁধ নির্মাণকাজও পিছিয়ে যাচ্ছে।

 

Facebook Comments Box