ইয়াওমুস ছুলাছা (মঙ্গলবার), ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

হজযাত্রীদের কোটা বরাদ্দের বিষয়ে ঘুষের বিনিময়ের অভিযোগ

সরকারি ও বেসরকারিভাবে হজে যেতে ইচ্ছুক হজযাত্রীদের জন্য বরাদ্দ দেয়া অবশিষ্ট ১০ হাজার ২০০ কোটা অসাধু মহল ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন এজেন্সির নামে বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। এ অভিযোগ হজ এজেন্সিস অব বাংলাদেশ (হাব) সমন্বয় পরিষদ করেছেন।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে পরিষদের নেতৃবৃন্দ এ তথা জানান।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সংগঠনের সদস্য সচিব রেজাউল করিম উজ্জল বলেন, এ বছর সরকারি ও বেসরকারিভাবে যেতে ইচ্ছুক হজযাত্রীর কোটা ১ লাখ ১ হাজার ৭৫৮টি। এর জন্য নিবন্ধন করেছেন ১ লাখ ৪০ হাজার ৯৫১ জন। অতিরিক্ত প্রায় ৪৮ হাজার হজ প্রত্যাশী প্রাক-নিবন্ধন করেছেন। সারা দেশের হজ এজেন্সিগুলোর কোটা বরাদ্দের পরও ৫ হাজার সরকারি ও ৫ হাজার ২০০ বেসরকারি কোটা বাকি রয়েছে। এসব কোটা ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা ঘুষের বিনিময়ে বিভিন্ন এজেন্সির নামে বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে, যা খুবই দুঃখজনক।

সংবাদ সম্মেলনে হজের বিমান টিকিট সিন্ডিকেটের হাতে তুলে না দেয়ার আহ্বান জানানো হয়। তারা বলেন, গত বছর হজের বিমান টিকিট সিন্ডিকেটের হাতে তুলে দেয়া হয়েছিল। প্রথম পর্যায়ে তারা (সিন্ডিকেট) ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা বেশি নিয়ে টিকিট বিক্রি করেছিল। এবারও যদি সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে তাহলে হজযাত্রীরা ক্ষতির সম্মুখীন হবেন। তাই এবার হজযাত্রীদের বিমান টিকিট হাবকে দেয়া হোক।

সৌদি এয়ারলাইন্সের বাংলাদেশের দুই এজেন্সিকে ৩০ হাজার টিকিট বরাদ্দ দেওয়ায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। আর এই ঘুষ নিয়ে কোটা বণ্টন বন্ধ না হলে বিক্ষোভ, মানববন্ধন কর্মসূচিসহ প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হবে।

সাংবাদিক সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, কোটা বঞ্চিত হজ এজেন্সির আহবায়ক আলহাজ রুহুল আমিন মিন্টুসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

Facebook Comments Box