জুমুআ (শুক্রবার), ১২ আগস্ট ২০২২

সময়মতো প্রকল্প বাস্তবায়ন না হওয়ায় সরকারি দলের এমপির ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক:সময়মতো উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন না হওয়া এবং মন্ত্রণালয়গুলো নির্ধারিত সময়ে নিজেদের বরাদ্দ খরচ করতে না পারায় জাতীয় সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সরকারি দলের সংসদ সদস্য (এমপি) আবুল কালাম আজাদ।

বুধবার (৬ মার্চ) জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনা ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সাব্কে মন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘কোনও প্রকল্প সময়মতো বাস্তবায়ন হয় না। এর কারণ দক্ষতার অভাব এবং সঠিকভাবে পরিকল্পনা গ্রহণ করতে না পারা। একজন মন্ত্রীও বলতে পারবেন না যে, একটি প্রকল্প সময়মতো শেষ হয়েছে।’ প্রকল্প বাস্তবায়নে দক্ষ জনবল খুঁজে বের করার আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘বেশিরভাগ মন্ত্রণালয় নিজেদের বরাদ্দের টাকা নির্দিষ্ট সময়ে শেষ করতে পারে না। অর্থবছরের আট মাস চলে গেছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান তাদের বরাদ্দের মাত্র ৪ দশমিক ৩ শতাংশ খরচ করেছে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ ৯৩ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। তারা এখন পর্যন্ত খরচ করেছে ১৭ কোটি টাকা। মন্ত্রণালয়গুলো অর্থবছরের শেষের দিকে গিয়ে তড়িঘড়ি করে টাকা খরচ করে। এতে কাজ হয় না। জনগণের টাকার অপচয় হয়।’

জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘বিএনপি–জামায়াত, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট একাদশ সংসদ নির্বাচনের মীমাংসিত ফলফলকে অমীমাংসিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। এটা দুঃখজনক। বিএনপির ভরাডুবি অপ্রত্যাশিত ছিল না। যারা বিভ্রান্ত করতে চাইছেন, তারা নতুন ষড়যন্ত্রের বীজ বপন করছেন।’

ইনু বলেন, ‘সব নির্বাচনেই কিছু অনাকাঙ্খিত অনিয়মের ঘটনা ঘটে। একাদশ সংসদ নির্বাচনে ৪০ হাজার কেন্দ্রের মধ্যে ২৫টির মতো কেন্দ্রে বিতর্কিত ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া, আর কিছু ঘটেনি। ঐক্যফ্রন্ট গণশুনানি করেছে, যা গণঘুমে পরিণত হয়েছে। কোনও তথ্যপ্রমাণ তারা উপস্থাপন করতে পারেনি।’

সাবেক তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি ফেরেস্তা নই, আমি শয়তান নই। আমি দোষে–গুণে মানুষ। সেভাবে বিবেচনা করবেন।’

সরকারের উন্নয়নের কথা তুলে ধরে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এখন কবিতায় কুঁড়েঘর আছে, বাস্তবে খুঁজে পাওয়া যায় না। ছেঁড়া কাপড় পড়া মানুষ দেখা যায় না। যারা ৯–১০ বছর আগে বিদেশ গিয়েছিলেন, তারা এখন বিমানে ফেরার সময় যখন কুড়িল ফ্লাইওভার দেখেন, মনে করেন লস অ্যাঞ্জেলস চলে এসেছেন। সেখান থেকে হাতিরঝিলে গেলে মনে হয়, প্যারিস শহরে চলে এসেছেন। বিমান থেকে চট্টগ্রামের আক্তার-উজ-জ্জামান ফ্লাইওভার যখন দেখেন, তখন মনে করেন ব্যাংকক বা সিঙ্গাপুরে চলে গেছেন।’

সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খান বলেন, ‘জামায়াতকে নিষিদ্ধ করার দাবি আছে। ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করা উচিত।’

বিরোধী দল জাতীয় পার্টির মাসুদ উদ্দীন চৌধুরী বলেন, ‘মাদকবিরোধী অভিযানকে আরও জোরালো করতে হবে। ব্যাংকিং সেক্টর অনেক বেশি দৃঢ়তার সঙ্গে মোকাবিলা করতে হবে। অর্থখাতে শৃঙ্খলা আনতেই হবে।’

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জমান নূর, বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময় প্রমুখ আলোচনায় অংশ নেন।

Facebook Comments Box