ইয়াওমুল আরবিয়া (বুধবার), ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১

লাগামহীন ভাবে বাড়ছে ও মাছ গোস্তের দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাজধানীর বাজারে লাগামহীন দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের মাছসহ ব্রয়লার, লেয়ার ও দেশি মুরগির মাংস। তবে কমেছে সবজির দাম, স্থিতিশীল রয়েছে ডাল, ডিম, চিনি, তেলসহ সকল প্রকার নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের। এছাড়াও চায়না থেকে আমদানিকৃত আদার দাম কেজিতে কমেছে ৪০ টাকা। আর রসুনের দাম কেজিতে ১০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকা কেজি দরে।

আজ শুক্রবার (১ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার সূত্রাপুর, নয়াবাজার, ধূপখোলা মাঠ, বাবু বাজার, রায়সাহেব বাজার, শ্যামবাজার, ঠাটারি বাজার, সেগুনবাগিচাসহ বেশ কয়েকটি বাজারে এমন দামে পণ্য বিক্রির তথ্য পাওয়া গেছে। কিন্তু তুলনামূলকভাবে দাম কমেছে সব ধরনের চালের দামের।

রাজধানীর বাজারগুলোতে প্রতিকেজি নাজিরশাইল চাল গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ৬২ টাকা, বর্তমানে ৫৮ থেকে ৬০ টাকা। মিনিকেট চাল ৫৬ টাকায় বিক্রি হলেও বর্তমানে ৫২ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। স্বর্ণা গত সপ্তাহে ছিল ৪৫ টাকা, বর্তমানে ৪২ টাকা। বিআর ২৮ নম্বর ৪৫ টাকায় বিক্রি হলেও বর্তমানে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে, রাজধানীর কাঁচাবাজারগুলোতে শীতের সবজিতে বাজার সয়লাভ হয়ে যাওয়ায় বেশিরভাগ সবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। গত সপ্তাহের মতো এখনও বাজারে দামি সবজির তালিকায় রয়েছে- করলা ও ঝিঙা। বাজার ও মানভেদে করলা বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা, ঝিঙা ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজিতে। এরপরেই রয়েছে লাউ। বাজার ও মানভেদে প্রতি পিস লাউ বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা, শিম কেজি প্রতি ১৫ থেকে ২০ টাকা, বেগুন ২০ থেকে ৩০ টাকা, ফুলকপি ১০ থেকে ২০ পিস, বাঁধাকপি ১৫ থেকে ২৫ টাকা পিস, শালগম ১০ থেকে ২০ টাকা কেজি, মুলা ১০ থেকে ২০ টাকা এবং পাকা টমেটোর কেজি ১৫ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি করছে।

অপরদিকে গত সপ্তাহের মতো চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে মুরগি। ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ টাকা থেকে ১৪০ টাকা কেজিতে। লাল কক মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৯৫ টাকা থেকে ২০৫ টাকা কেজিতে। আর পাকিস্তানি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৬০ থেকে ২৮০ টাকায়। কিন্তু মুরগির দাম বাড়লেও বাজারে ডিম, গরু ও খাসির মাংসের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। গরুর মাংস আগের মতোই ৪৮০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা কেজি এবং খাসির মাংস ৬৫০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। মুরগির ডিম প্রতি ডজন ৯৫ টাকা, হাঁসের ডিম ১৫৫ টাকা, দেশি মুরগির ডিম ১৭০ টাকা ডজন বিক্রি হচ্ছে।

তবে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে মাছ। রুই মাছ বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকা থেকে ৪০০ টাকা কেজিতে। পাবদা ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা, টেংরা ৫০০ থেকে ৬৫০ টাকা, তেলাপিয়া ১৪০ থেকে ১৮০ টাকা, পাঙাশ ১২০ টাকা থেকে ১৬০ টাকা, শিং ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, বোয়াল ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা, চিতল ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা, আইড় ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা, বাইলা ৭০০ টাকা, বাইম ৬০০ টাকা, পোয়া ৫০০ টাকা, মলা ৪০০ টাকা, খল্লা ৩৫০ টাকা, শোল মাছ ৬০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

অপরিবর্তিত রয়েছে মুদি পণ্যের দাম। বাজারে খোলা আটা বিক্রি হচ্ছে ২৬ টাকা, প্যাকেট ৩২ টাকা, চিনি ৫০, ডাল ৪০ থেকে ৯০ টাকা, তেল সোয়াবিন ৫ লিটার ৪৫০ থেকে ৪৬০ টাকা, খোলা লিটার ৮২ টাকা, সরিষার তেল কেজি ১৩০ টাকা, লবণ ৩০ থেকে ৩৫ টাকা ও পোলাউর চাল ৯০ থেকে ৯৫ টাকা।

এছাড়া নতুন আলুর দাম কেজিতে ৫ টাকা কমে ১৫ থেকে ২০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। দাম অপরিবর্তিত রয়েছে পেঁয়াজ ও কাঁচামরিচের। আগের সপ্তাহের মতো দেশি পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের কেজি ১৫ থেকে ২০ টাকা। কাঁচামরিচের পোয়া (২৫০ গ্রাম) বিক্রি হচ্ছে ১০ থেকে ১৫ টাকা, পালং শাক বিক্রি হচ্ছে ৫ থেকে ১৫ টাকা আঁটি, লাল ও সবুজ শাক ৫ থেকে ১০ টাকা আঁটি, লাউ শাক পাওয়া যাচ্ছে ২০ থেকে ৩০ টাকায় ও সরিষা শাক ৫ থেকে ১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

Facebook Comments Box