ইয়াওমুল ইসনাইন (সোমবার), ১৮ অক্টোবর ২০২১

বেশি দামে কেনা হচ্ছে এলএনজি: ৩১৮০ কোটি টাকায় ৭ ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক: কয়েকদিনের ব্যবধানে বেশি দামে এলএনজি কেনার অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। তবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল রাইজিংবিডির এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়ে যাওয়ায় বেশি দামে এলএনজি কিনতে হচ্ছে। সভায় এলএনজি কেনার ২টি প্রস্তাবসহ মোট ৭টি ক্রয় প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়। ৭টি ক্রয় প্রস্তাবে মোট ব্যয় হবে ৩,১৮০ কোটি ১৮ লাখ ১১ হাজার টাকা।

বুধবার অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ভার্চুয়ালি সভায় কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ও উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভা শেষে অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সামসুল আরেফিন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ২৮তম এবং সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ৩৪তম সভা হয়েছে। অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত কমিটির অনুমোদনের জন্য ২টি এবং ক্রয় সংক্রান্ত কমিটির অনুমোদনের জন্য ৭টি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। ক্রয় কমিটির প্রস্তাবগুলোর মধ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের ২টি, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের ২টি, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ১টি, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ১টি এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ১টি প্রস্তাব ছিল। ক্রয় কমিটির অনুমোদিত ৭টি প্রস্তাবে মোট অর্থের পরিমাণ ৩,১৮০ কোটি ১৮ লাখ ১১ হাজার ৭০ টাকা। মোট অর্থায়নের মধ্যে জিওবি হতে ব্যয় হবে ২,৮৭৪ কোটি ৪০ লাখ ৭৮ হাজার ৯১২ টাকা। বিশ্বব্যাংক ও দেশীয় ব্যাংক হতে ঋণ ৩০৫ কোটি ৭৭ লাখ ৩২ হাজার ১৫৮ টাকা। অনুমোদিত প্রস্তাবগুলোর বিস্তারিত জানাবেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সামসুল আরেফিন।

গত ২২ সেপ্টেম্বর সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় ৩৩ লাখ ৬০ হাজার এমএমবিটিইউ এলএনজি আমদানির একটি প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়। সে সময় প্রতি এমএমবিটিইউয়ের দাম ছিল ২৯.৮৯২১ মার্কিন ডলার। মাত্র ১৪ দিনের ব্যবধানে স্পট মার্কেট থেকে আরও ২টি প্রস্তাবের প্রতিটিতে ৩৩ লাখ ৬০ হাজার এমএমবিটিইউ করে মোট ৬৭ লাখ ২০ হাজার এমএমবিটিইউ এলএনজি গ্যাস আমদানির প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে একটি প্রস্তাবে প্রতি ইউনিটের দাম পড়বে ৩৫.৮৯৩২ ডলার এবং অন্যটির প্রতি ইউনিটের দাম পড়বে ৩৬.৯৫ ডলার। অর্থাৎ প্রতি ইউনিটে গড়ে ৬ ডলারের বেশি ব্যয় হবে।

এ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিনিয়ত দাম উঠানামা করে। এ কারণে দাম কিছুটা বেড়েছে। আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত আমাদের আর এলএনজি আমদানি করতে হবে না।
সভায় রাশিয়া থেকে সরকার টু সরকার (জিটুজি) পদ্ধতিতে ১ লাখ মেট্রিক টন গম সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে আমদানির প্রস্তাব গত মাসের ২৯ তারিখের সিসিইএ সভায় অনুমোদিত হয়। দেশটির সঙ্গে জি টু জি ভিত্তিতে নেগোসিয়েশনের মাধ্যমে গমের দাম নির্ধারণ করে প্রতি মেট্রিক টন গম ৪১৯ মার্কিন ডলার হিসেবে মোট ৪ কোটি ১৯ লাখ মার্কিন ডলার সমপরিমাণ বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩৫৭ কোটি ৬১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা ব্যয়ে আমদানির প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। প্রতি কেজি গমের দাম ৩৫.৭৬ টাকা।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন’ প্রকল্পের আওতায় অ্যাগ্রো বিজনেস প্ল্যানিং, টেকনোলজিস অ্যান্ড মার্কেটিং অ্যাডভান্স অ্যান্ড ইমপ্লিমেন্টেশন সাপোর্ট কাজের জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের একটি প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। যৌথভাবে জার্মানির এগ্রিকালচার অ্যান্ড ফাইন্যান্স কনসালট্যান্ট এবং বাংলাদেশের সার্ভিস অ্যান্ড সলিউশন ইন্টান্যাশনাল লিমিটেডকে পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ৪৮ কোটি ২৫ লাখ ১২ হাজার ২৩৮ টাকা।

সভায় রাষ্ট্রীয় চুক্তির মাধ্যমে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে তৃতীয় লটে ৩০ হাজার মেট্রিক টন বাল্ক গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। দেশটির সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী সারের দাম নির্ধারণ করে প্রতি মেট্রিকটন ইউরিয়া সার ৪৯৮.৩৩ মার্কিন ডলার হিসেবে ৩০ হাজার মেট্রিকটন বাল্ক গ্র্যানুলার ইউরিয়া সারের দাম পড়বে বাংলাদেশি মুদ্রায় ১২৭ কোটি ৬৭ লাখ ২১ হাজার ৪৬০ টাকা।

অতিরিক্ত সচিব জানান, রাষ্ট্রীয় চুক্তির মাধ্যমে কাতার থেকে ৫ম লটে ৩০ হাজার মেট্রিক টন ব্যাগড প্রিল্ড ইউরিয়া সার আমদানির অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। কাতারের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী সারের দাম নির্ধারণ করে প্রতি মেট্রিকটন ৫০৬.৮৩ মার্কিন ডলার হিসেবে ৩০ হাজার মেট্রিকটন ব্যাগড প্রিল্ড ইউরিয়া সার আমদানিতে ব্যয় হবে বাংলাদেশি মুদ্রায় ১২৯ কোটি ৮৪ লাখ ৯৮ হাজার ৪৬০ টাকা।

সভায় ‘বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন-২০১০’ (২০১৮ সালের সর্বশেষ সংশোধনীসহ) এর আওতায় স্পট মার্কেট থেকে ১৯তম এলএনজি আমদানির প্রস্তাবের আওতায় ৩৩ লাখ ৬০ হাজার এমএমবিটিইউ এলএনজি আমদানির প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। প্রতি এমএমবিটিইউয়ের দাম ৩৫.৮৯৩২ ডলার হিসেবে মোট ব্যয় হবে ১,২০৫ কোটি ৭২ লাখ ৮১ হাজার ৭২ টাকা।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন- ২০১০’ (২০১৮ সালের সর্বশেষ সংশোধনীসহ) এর আওতায় স্পট মার্কেট থেকে ২১তম এলএনজি আমদানির প্রস্তাবের আওতায় ৩৩ লাখ ৬০ হাজার এমএমবিটিইউ এলএনজি আমদানির প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে ক্রয় কমিটি। প্রতি এমএমবিটিইউয়ের দাম ৩৬.৯৫ মার্কিন ডলার হিসেবে মোট ব্যয় হবে ১,২৪১ কোটি ২২ লাখ ৮২ হাজার ৪২৮ টাকা।

তিনি বলেন, নরসিংদী জেলা কারাগার নির্মাণ’ প্রকল্পের লট নম্বর পূর্ত-১(বি)-এর নির্মাণকাজ ক্রয়ের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। উন্মুক্ত দরপত্রের সব প্রক্রিয়া শেষে টিইসি কর্তৃক সুপারিশকৃত রেসপনসিভ সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠান নূরানী কন্সট্রাকশন লিমিটেডকে প্রকল্পটির ঠিকাদান হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ৬৯ কোটি ৮৩ লাখ ৫০ হাজার ৪১২ টাকা।

এর আগে অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিদ্যমান আমদানি নীতি আদেশ ২০১৫-২০১৮ এর ৩টি অনুচ্ছেদ/আদেশ সংশোধনের নীতিগত অনুমোদনের প্রস্তাবের দুটিতে অনুমোদন দেওয়া হয় এবং একটি অনুচ্ছেদ সংশোধনের জন্য ফেরত দেওয়া হয়। এছাড়া বাংলাদেশ পুলিশের জন্য জি-টু-জি পদ্ধতিতে রাশিয়ার নিকট থেকে ২টি হেলিকপ্টার কেনার প্রস্তাবে নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়।

Facebook Comments Box