ইয়াওমুল আহাদ (রবিবার), ১৮ এপ্রিল ২০২১

দাঁড়িয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের পিষে দিল বাস, নিহত ২

বাসে ওঠার জন্য রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন রাজধানীর শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী। এ সময় জাবালে নূর পরিবহনের একটি বেপরোয়া গতির বাস শিক্ষার্থীদের ওপর উঠে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই দুই শিক্ষার্থী নিহত হন। আহত হন আরো ১৪ জন। তাদেরকে কুর্মিটোলা জেনারেল হসপিটালে ভর্তি  করা হয়েছে।

রোববার (২৯ জুলাই) দুপুর ১২টার দিকে বিমানবন্দর সড়কের ক্যান্টনমেন্ট থানাধীন খিলক্ষেত এলাকার র‌্যাডিসন ব্লু  হোটেলের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ ও যানবাহন ভাঙচুর করে বিক্ষুব্ধ জনতা। নিহতরা হলেন- দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী করিম ও একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া।

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সহকারী পরিচালক মো. সগির মিয়া বলেন, দুর্ঘটনার পরপরই আহত ১৪ জনকে এখানে নিয়ে আসা হয়। তখন দু’জনকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

তিনি বলেন, ‘ছয়জনকে আমরা প্রাথমিক চিকিৎসা দিই, বাকি ছয়জনকে সিএমএইচে নেওয়া হয়েছে। তাদের অবস্থা বেশি গুরুতর নয়।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুরে আবদুল্লাহপুর থেকে মোহাম্মদপুর রুটে চলাচলকারী জাবালে নূর নামের একটি বাস বেপরোয়া গতিতে আসছিল। বাসটি ঘটনাস্থলে এসেই  রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের ওপর উঠে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই দুই শিক্ষার্থী প্রাণ হারান। গুরুতর আহত অবস্থায় আরো কয়েকজন শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এদিকে, ঘটনার পর ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এলাকার ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বেরিয়ে এসে রাস্তা আটকে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় সেখানে বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় কয়েকটি বাসে।

ক্যান্টনমেন্ট থানার এএসআই রেজাউল ইসলাম বলেন, দুর্ঘটনাস্থলের পাশেই শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজ। ঘটনার সময় শিক্ষার্থীরা র‌্যাডিসনের গ্যাপ দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন, অনেকে বাসের জন্য ফুটপাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস শিক্ষার্থীদের চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই দুজন নিহত হন।

খবর পেয়ে শিক্ষার্থীরা বেরিয়ে এসে সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা কয়েকটি যানবাহনে ভাঙচুরও চালায় বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

তবে, ঘটনাস্থলে থাকা পুলিশ সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন ট্রাফিক পুলিশের নিয়ন্ত্রণ কক্ষে দায়িত্বরত এসআই মুন্নি আক্তার।

Facebook Comments