আহাদ (রবিবার), ২২ মে ২০২২

ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ রজার স্টোন গ্রেপ্তার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দীর্ঘ সময়ের বন্ধু ও দেশটির রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ রজার স্টোনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ২০১৬ সালের মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের বিষয়ে উঠা অভিযোগের যে তদন্ত রবার্ট মুয়েলারের নেতৃত্বে হচ্ছে তাতে অভিযুক্ত স্টোন।
শুক্রবার ভোরে ফ্লোরিডা থেকে ৬৬ বছর বয়সী ওই ঝানু রাজনীতিককে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে ফোর্ট লডারডেলের আদালতে হাজির করা হতে পারে বলে জানিয়েছে বিবিসি। বিগত ৭০ বছর ধরে মার্কিন রাজনীতি নিয়ে কাজ করছেন স্টোন।
তার বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বিঘ্ন ঘটানো সংক্রান্ত একটি, মিথ্যা সাক্ষ্য দেওয়া সংক্রান্ত পাঁচটি এবং সাক্ষ্য-প্রমাণ নষ্ট সংক্রান্ত একটি অভিযোগ আনা হয়েছে।
খবরে বলা হয়েছে, ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ডেমোক্র্যাটদলীয় কর্মকর্তাদের, ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী হিলারি ক্লিনটনসহ, ইমেইল হ্যাকের যে অভিযোগ রয়েছে, স্টোনের বিরুদ্ধে আনার অভিযোগের সঙ্গে তার যোগসূত্র রয়েছে।
ওই সব ইমেইলে যে তথ্য ছিল তা নির্বাচনী প্রচারের সময় ফাঁস করে দেয় তার আগে তথ্য ফাঁস করে বিশ্বব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টিকারী ওয়েবসাইট উইকিলিকস।
ওই সময় হিলারির ক্যাম্পেইন (প্রচার) চেয়ারম্যান ছিলেন জন পডেস্টা, যার ইমেইল হ্যাকের অন্যতম টার্গেটে পরিণত হয়। স্টোনকে ‘নোংরা প্রতারক’ হিসেবে উল্লেখ করে পডেস্টা অভিযোগ করেছেন যে, উইকিলিকসের তথ্য ফাঁসের বিষয়টি আগে থেকেই জানতেন রজার।
তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, স্টোন উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে ইমেইগুলো ফাঁসের আগেই যোগাযোগের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। আর ওই যোগাযোগ ‘সম্পূর্ণ বৈধ’ ছিল বলেও মনে করেন তিনি।
প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের মার্কিন নির্বাচন নিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে ট্রাম্পের আঁতাত ছিল বলে যে অভিযোগ উঠেছে, বিশেষ কাউন্সেল রবার্ট মুয়েলারের নেতৃত্বে তার তদন্ত হচ্ছে। আর ওই তদন্ত দল রজার স্টোনের নির্বাচনকালীন প্রচার কর্মকাণ্ড নিখুঁতভাবে খতিয়ে দেখছে।
মুয়েলারের নেতৃত্বাধীন তদন্ত দলের ৩৪তম অভিযুক্ত হলেন রজার স্টোন।
অবশ্য ট্রাম্প মুয়েলারের এই তদন্তকে ‘উইচ-হান্ট বা ডাইনি অনুসন্ধান’ হিসেবে অভিহিত করেছেন। আর রুশ প্রশাসন ক্রেমলিন ওই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে।

Facebook Comments Box