ইয়াওমুস সাবত (শনিবার), ২৪ জুলাই ২০২১

চীন-আফগানিস্তান সীমান্ত শহরের নিয়ন্ত্রণ নিল তালেবান -গজনি ঘিরে রেখেছে তালেবান

গজনি ঘিরে রেখেছে তালেবান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আফগানিস্তানের বাদাখশন প্রদেশের ওয়াখান শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে তালেবান। ওয়াখান চীনের সাথে আফগানিস্তানের একমাত্র সীমান্ত শহর। গত রোববার গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান, বাদাখশান প্রদেশের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য আব্দুল্লাহ নাজি নাজারি।

তিনি বলেন, বাদাখশান প্রদেশে তালেবান তাদের দখলদারীত্ব অব্যাহত রেখেছে। তারা চীনের সিন কিয়াং প্রদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় পৌঁছে গেছে। ওয়াখান জেলায় মোতায়েন আফগান সরকারি সেনারা তাজিকিস্তানে পালিয়ে গেছে এবং তালেবান শহরটি বিনা যুদ্ধে দখল করে নিয়েছে বলে জানান তিনি।

হিন্দুকুশ পর্বতমালায় সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪,৯২৩ মিটার উঁচুতে অবস্থিত দুর্গম পাহাড়ি পথ ওয়াখজির পাস হচ্ছে আফগানিস্তান এবং চীনের মধ্যে যাতায়াতের একমাত্র পথ। আফগানিস্তানের সীমান্তবর্তী জেলা ওয়াখানের পর পাকিস্তান ও তাজিকিস্তানের মধ্যবর্তী এই গিরিপথটি অবস্থিত যেটিকে ওয়াখান করিডোরও বলা হয়। চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরের প্রান্তসীমায় এটির অবস্থান বলে এটির নিরাপত্তা বেইজিং-এর কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

অপরদিকে আফগানিস্তানের কেন্দ্রস্থলে গজনি নগরী ঘিরে রেখেছে তালেবান যোদ্ধারা। নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হামলা চালাতে তারা সেখানকার মানুষজনের বাড়িঘরে অবস্থান নিয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

বিদেশি সেনারা চলে যাওয়ার মধ্যে তালেবানের একের পর এক নগরী এবং অঞ্চল দখলে নিতে থাকার মধ্যে প্রাদেশিক রাজধানী গজনি অভিযানই সর্বসাম্প্রতিক।

গজনি প্রদেশের কাউন্সিল সদস্য হাসান রেজাই বলেন, “গজনি নগরীর পরিস্থিতি খুবই জটিলৃ তালেবান সাধারণ মানুষের ঘরবাড়িতে আস্তানা গেড়েছে এবং আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর (এএনডিএসএফ) ওপর গুলি ছুড়ছে। একারণে তালেবানের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো এএনডিএসএফ এর জন্য খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে।”

দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ কান্দাহারে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাড়ছে। ওই এলাকায় তালেবানের আধিপত্য শুরু থেকেই আছে বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা। আর কাবুল এবং কান্দাহার নগরীর মধ্যকার মূল রাস্তাটাই হচ্ছে গজনির।

Facebook Comments Box