ইয়াওমুল খামিছ (বৃহস্পতিবার), ০৫ আগস্ট ২০২১

আকাশে ভাসছে জাহাজ!

আকাশে ভাসছে জাহাজ!

নিউজ ডেস্ক: অনেক সময় চোখের সামনে দেখা অনেক কিছুই বিশ্বাস করতে চায় না মন। এমনই এক অদ্ভুত ঘটনা ঘটেছে ব্রিটেনের এক বাসিন্দার সঙ্গে। সমুদ্রের ঠিক ওপরে বিশাল একটি জাহাজকে শূন্যে ভেসে থাকতে দেখে তার চোখ। সে এই দৃশ্য বিশ্বাস করতে পারেনি।

আদৌ কি জাহাজটি আকাশে ভাসছিল? আদতে না। তার চোখকে ধোঁকা না দিয়েছে বিরল আবহাওয়া। যার ফলে অপটিক্যাল ইল্যুশন বা দৃষ্টি বিভ্রমের সৃষ্টি হয়েছে।

বিষয়টি আর কিছুই নয়, বিজ্ঞান। এটি দৃষ্টিবিভ্রমের একটি উদাহরণ যা মরীচিকা (সুপিরিয়র মিরেজ) হিসেবে আমাদের কাছে পরিচিত। এ ধরনের বিভ্রম আর্কটিক অঞ্চলে প্রায়ই ঘটার সম্ভাবনা থাকলেও যুক্তরাজ্যে কমই ঘটে থাকে।

এ ধরনের দৃষ্টিবিভ্রম মূলত আবহাওয়াগত কারণে ঘটে যাকে বিজ্ঞানীরা তাপমাত্রা বিপর্যয় (টেম্পারেচার ইনভারশন) হিসেবে অভিহিত করেছে। সাধারণত উচ্চতা বৃদ্ধির সাথে বায়ুর তাপমাত্রা ক্রমশ হ্রাস পায় যা পর্বতশৃঙ্গগুলোকে তাদের পাদদেশের চেয়ে শীতলতর করে তোলে। কিন্তু যখন টেম্পারেচার ইনভারশন দশা ঘটে, তখন উষ্ণ বায়ু শীতলতর বায়ুর ওপর থাকে। ফলে বায়ুম-লের স্তরে যে পরিবর্তন সাধিত হয় তাতে আমাদের দেখতে পাবার ক্ষমতায় বিপর্যয় নেমে আসে। কর্নওয়ালে দৃষ্টি বিপর্যয়ের কারণও এটি। শীতল সমুদ্রের ওপর ঠান্ডা বাতাস বইছিল, তার ওপরের স্তরে আবার ছিল উষ্ণ বায়ুপ্রবাহ।

যেহেতু ঠান্ডা বাতাস উষ্ণ বাতাসের চেয়ে ঘন, তাই এটি স্থল বা উপকূলে দাঁড়িয়ে থাকা ব্যক্তির চোখের দিকে আলোর প্রবেশপথ বাঁকিয়ে দেয়, ফলস্বরূপ অনেক দূরবর্তী বস্তু ভিন্নভাবে নজরে আসে। সুপিরিয়র মিরেজগুলো বিভিন্ন ধরণের চিত্র তৈরি করতে পারে- এখানে একটি দূরবর্তী জাহাজকে তার আসল অবস্থানের থেকে ওপরে উঁচুতে ভাসতে দেখা যায়, তবে কখনও কখনও দিগন্তসীমার নিচের কোনো বস্তুও দৃশ্যমান হতে পারে।

Facebook Comments Box